রসুন এর উপকার না অপকার?

চিকিৎসার কাজে রসুনের ব্যবহার কয়েক হাজার বছর আগে থেকেই হয়ে আসছে। গবেষকরা মনে করেন, রসুন খাওয়া সত্যিই মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ভাল।

নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, মানুষের ক্যান্সার, হৃদরোগ ও টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমিয়ে দেয় এই রসুন।

নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা তাই এই রহস্য ভেদ করতেই রসুনের উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে একটি গবেষণা চালিয়েছেন।

গবেষকদের প্রধান ড. পিটার রৌজ মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছিন। তিনি ও তার সহকর্মীদের কাছে বিষয়টি এখনও রহস্যে ঢাকা যে কীভাবে রসুন খেলে মানুষ এর উপকারিতা পাবে।

অনেকগুলো কোয়া মিলে একটি রসুনের গড়ন। প্রাচীন তিব্বতে তেলের সঙ্গে মিশিয়ে কিংবা অ্যালকোহলের সঙ্গে গাজিয়ে মানুষ রসুন খেতেন।

কিন্তু এক টুকরা রসুনের রুটি কিংবা একটি কোয়া কাঁচা চিবিয়ে খেলে কতটা উপকৃত হওয়া যাবে, তা নিয়ে কোনো সঠিক প্রমাণ হাজির করতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।

ড. রৌজ বলেন, রসুনের বিভিন্ন রকমের প্রস্তুতির বিভিন্ন রকম উপকারিতা রয়েছে। কিন্তু মানব শরীরের বিপাক ক্রিয়ায় এটা কীভাবে কাজ করে, তা নিয়ে একটা জটিলতা রয়ে গেছে।

তবে রান্নায় স্বাদকে বাড়ানোর ক্ষেত্রে শুধু নয়, রসুনের পুষ্টিগুণ রসুনকে পৌঁছে দিয়েছে মসলার অন্যতম তালিকার মধ্যে। ভিটামিন ও মিনারেলের মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, থিয়ামিন, রিবোফ্লোভিন, ভিটামিন সি। এছাড়া রসুনে আয়োডিন, সালফার ও ক্লোরিনও রয়েছে অল্প পরিমানে।

তবে এটা সত্য কথা রক্তচাপ কমাতে রসুন খুবই ভাল কাজ করে। এমনকি ক্যান্সাররোধী উপদানও এর মধ্যে রয়েছে। এই মসলাটি মানুষের রক্তে শর্করার পরিমাণও কমিয়ে দেয়। কাজেই ডায়াবেটিস রোধে এর কোনো তুলনা হয় না।