ভোটে বিজেপিকে ফায়দা দিতে, এগিয়ে আনা হচ্ছে মোদীর বায়োপিক।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ "সিনেমা" বর্তমানে এই সিনেমার প্রতি মানুষ একটু বেশিই আকৃষ্ট হয়।সেজন্যই কি প্রধানমন্ত্রী এই সিনেমার প্রতি বেশি গুরুত্ব দিছে?প্রশ্ন টা উঠছেই।তাহলে কি ২০১৯ এ ভোট টানতে সিনেমার প্রতি বেশি গুরুত্ব  দিছেন প্রধানমন্ত্রী?। ভোটের আগেই তাই মুক্তি পেতে চলেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জীবন কাহিনি ‘পি এম নরেন্দ্র মোদি’। অনেক বিরোধী দল নির্বাচন কমিশনে চিঠি লিখে জানিয়েছে, ভোটের আগে এই সিনেমা যেন মুক্তি না পায়। নির্বাচন কমিশন কিন্তু এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

সূত্রে খবর উমঙ্গ কুমার ‘পি এম নরেন্দ্র মোদি’র পরিচালক। মোদির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বিবেক ওবেরয়। ঠিক ছিল ১২ এপ্রিল সিনেমাটা মুক্তি পাবে। কিন্তু আচমকাই মুক্তির দিন এগিয়ে আনা হয়েছে। ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের জন্য ৫ এপ্রিল, গোটা দেশে মুক্তি পাচ্ছে ‘পি এম নরেন্দ্র মোদি’।
সিনেমার ট্রেলার ইতিমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে এক কিশোর ট্রেনে চা বিক্রি করছেন। দেশ ঘুরে তিনি হাজির রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘে। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর ডায়লগ যেমন আছে ঠিক তেমনই সিনেমা জুড়ে দেশপ্রেমী ডায়ালগ আছে প্রচুর। ভোট বড় বালাই।

নারীর মন জয়ে ট্রেলারে শোনা যায় মোদিকন্ঠ, ‘যত দিন ভারতের নারী অবলা থাকবে, এই দেশ শক্তিশালী হতে পারবে না।’ট্রেলারে রয়েছে গুজরাট দাঙ্গার দৃশ্য, মোদির আক্ষেপ ‘মেরা গুজরাট জ্বল রহা হ্যায়’ এবং সংকল্প ‘এই দেশের ভাগ্য বদলাতে হলে আগে আমাদের ভাগ্যের মুখোমুখি হতে হবে’। এ ছাড়াও আছে, ‘পাকিস্তান আর একবার হামলা করলে ওই হাত আমি কেটে দেব। তোমরা আমাদের বলিদান দেখেছ, এবার বদলা দেখবে।’
পাকিস্তানের মাটিতে গিয়ে সার্জকাল স্ট্রাইক কে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছে ‘উরি, দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’। ভোটের আগে মোদির বায়োপিক হতে চলেছে কামারের শেষ ঘা।

তাহলে কি আসন্ন লোকসভার আগে মোদির দেওয়া বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি পূরণ না হওয়ার জন্যই কি , ভোট টানার জন্য মোদির নতুন কৌশল। এই সিনেমা - উঠছে প্রশ্ন?