মন কি বাত নয়, কাম কি বাত করুক কেন্দ্র, তোপ দাগলেন অঘোর দেববর্মা

বৃহস্পতিবার খোয়াইয়ে ত্রিপুরা রাজ্য উপজাতি গণমুক্তি পরিষদের মহকুমা ভিত্তিক কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় সভাপতিমণ্ডলীতে ছিলেন নরেন দেববর্মা বক্তব্য রাখেন অঘোর দেববর্মা, পদ্মকুমার দেববর্মা, শচীন্দ্র দেববর্মা এবং হরেন্দ্র দেববর্মা।

মন কি বাত অনেক হয়েছে, এবার কাম কি বাত করুন। কথায় বিপ্লব না ঘটিয়ে কাজে প্রমাণ করুন। কেন্দ্র ও রাজ্য বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে এভাবেই তীক্ষ্ণ আক্রমণ করলেন ত্রিপুরার রাজ্য উপজাতি গণমুক্তি পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি অঘোর দেববর্মা। বৃহস্পতিবার সংগঠনের মহকুমা ভিত্তিক কনভেনশনে তিনি বক্তব্য রাখছিলেন এই কনভেনশন থেকে ব্লকে ডেপুটেশন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

আলোচনায় অংশ নিয়ে অঘোর দেববর্মা বলেছেন ত্রিপুরায় আজ গণতন্ত্র বিপন্ন। এখন প্রধান কাজ গণতান্ত্রিক অধিকার পুনরুদ্ধার করা। এতদিন রাজ্য গণতান্ত্রিক যে বাতাবরণ ছিল নতুন সরকার এসে তা ধ্বংস করেছে কায়েম করেছে সন্ত্রাসের রাজত্ব এজন্যই বিপন্ন অধিকার রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে । তিনি বলেন আমরা আগেই বলেছিলাম একমাত্র বামফ্রন্ট সরকারী উপজাতিদের স্বার্থে কাজ করতে পারে অন্যরা শুধু প্রলোভন দেখায়। গত আড়াই মাসে রাজ্য আবার তা প্রমাণিত হলো কারা উপজাতিদের শত্রু কারা বন্ধু । আজ কাজ খাদ্যের অভাবে মানুষ রাত জড়িত হচ্ছেন, গত ২৫ বছরে এই চিত্র ছিল না। এখন সিপিআইএম অফিস ভাঙ্গা, চাঁদার জুলুম দৈহিক নির্যাতন দেখাচ্ছে বিজেপি। নির্বাচিত প্রতিনিধিদের জোরজবস্তি পদত্যাগ করতে বাধ্য করাচ্ছে। এভাবে গণতন্ত্র ধ্বংস মেনে নেওয়া যায়না।

অঘোর বাবু বলেছেন দিল্লি সরকার কেবল মন কি বাত করছেন কাজের কাজ কিছু করছেননা। প্রতিশ্রুতি পূরণ করছেন না মানুষ আর তা শুনতে চায় না, মানুষ চায় সরকার এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব এর কথায় বিপ্লব দেখাচ্ছেন আমরা চাই কাজকর্মে বিপ্লব এর প্রতিফলন ঘটুক।

তিনি বিভিন্ন রাজ্যে উপজাতিদের অবস্থা তুলে ধরে বলেন, অন্য রাজ্যের দুর্দশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে উপজাতিরা। বামফ্রন্ট সরকার ছিল বলে অবস্থা ভালো ছিল আর্থসামাজিক উন্নয়ন হয়। আজ আবার অবস্থা খারাপ হচ্ছে। বিজেপি বলেছিল সামাজিক ভাতা ২০০০ টাকা করবে, বাড়ানো দূরে থাক তারা এখনো আগের ৭০০ টাকায় দিচ্ছেনা। তিনি বলেন কংগ্রেস এর সময়ও উপজাতিদের কোনো উন্নয়ন হয়নি একমাত্র বামপন্থী সরকারি উপজাতি উন্নয়নের কাজ করে এই অর্জিত অধিকার কেড়ে নিতে উদ্যত বিজেপি সরকার। তাদের সঙ্গী উপজাতি দল হলেও উপজাতি বিদ্মেষী, তাই এই সরকারের জনস্বার্থ বিরোধী ভূমিকায় বিরুদ্ধে বেশি মানুষকে সংগঠিত করা প্রয়োজন।