যোগী কে 'ভোগী' বলে উত্তরপ্রদেশ ছাড়ল পতঞ্জলী

গেরুয়া বস্ত্র শুধু পরিধান নয়, প্রকৃত অর্থে বিজেপির সমর্থক হিসবে বার বার নাম উঠেছে যোগ গুরু বাবা রামদেবের। ২০১৪ র লোকসভা ভোটের আগে খোলা খুলি ভাবেই প্রচার করেছিলেন মোদীর হয়ে। কিন্তু ৪ বছর যেতে না যেতেই বিজেপির যোগীর বিরুদ্ধে মুখ খুলেল বাবা রামদেবের পতঞ্জলী।

কয়েক বছর ধরেই, বিদেশী দ্রব্য পরিত্যাগ করে স্বদেশী পতঞ্জলীর জিনিস কেনার প্রচারে নেমেছেন রামদেব। যেখানে ছোট বড় সব ধরনের জিনিস ই বিক্রয় করা হয় পতঞ্জলীর পক্ষ থেকে। দেশের অন্যতম বড় বিজেপি শাসিত রাজ্য উত্তরপ্রদেশ কে বেছে  নেওয়া হয় পতঞ্জলীর ফুডপার্ক প্রস্তুতের জন্য।

সেখানে যমুনা এক্সপ্রেসওয়ে সংলগ্ন এলাকায় প্রায় ৪২৫ একর জায়গা জুড়ে সুবিশাল ফুডপার্ক তৈরীর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল পতঞ্জলীর পক্ষ থেকে। এই পতঞ্জলীর ফুডপার্ক টি প্রস্তুতের জন্য ৬ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগের পরিকল্পনা করা হয়।

কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে সরকারের পক্ষ থেকে তাদের এই প্রকল্প কে আটকে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে পতঞ্জলীর ম্যানেজিং ডিরেক্টর আচার্য বালকৃষ্ণ। তিনি আরও জানান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সাথে কথা বলেও এর কোন সুরাহা হয়নি। এই ঘটনাতে ক্ষিপ্ত হয়ে উত্তরপ্রদেশ থেকে প্রকল্প সরিয়ে নিয়ে যেতে চাইছে পতঞ্জলী।

উপনির্বাচনের ফলাফলের পর থেকেই যোগী আদিত্যনাথ রাজনৈতিক জটিলতায় ভুগছেন বলে জানা গেছে, এমন কি নিজের কেন্দ্র বিজেপির গর গোরক্ষপুর ও কিছুদিন আগে হারিয়েছে যোগী আদিত্যনাথ। তার মধ্যে বিজেপি ঘনিষ্ঠ বাবা রাম দেবের  পতঞ্জলীর পক্ষ থেকে এভাবে "শিল্প বিরোধী" তখমা লাগিয়ে প্রত্যাখ্যান , তার জটিলতা আরও বাড়াল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তবে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ফুডপার্কের চূড়ান্ত অনুমোদন জন্য পতঞ্জলীকে বেশ কয়েকটি শর্তপূরণ করতে হবে যা করতে গেলে এখন ও ১ মাস অপেক্ষা করতে হবে পতঞ্জলীকে। কিছু দিন আগেই হোয়াটসঅ্যাপ কে টেক্কা দিতে রামদেব 'কিম্ভো' নামক একটি সোয়ার্ডী মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন প্রকাশ করেছেন। এখন ও রামদেবের পক্ষ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।