রমজান মাসে চরম কুরবানির নিদর্শন। মেয়েকে খুন বাবার।

চলছে পবিত্র রমজান মাস। কিছুদিন পরেই মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের বিশেষ উৎসব খুশীর ঈদ। তার মাঝেই ঘটে গেল এই নারকীয় ঘটনা। কুসংস্কার যে কতটা আগ্রাসী ও ক্ষতিকারক হতে পারে তা যেন আরেকবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল এই ঘটনা।

রাজস্থানের পিপারসিটি এলাকায় এই ভয়াবহ ঘটনাটি ঘটে। শুক্রবার সকালে নিজের বাড়ীতেই গলাকাটা অবস্থায় উদ্ধার হয় ৪ বছরের রিজওয়ানার দেহ। পুলিশ তদন্তে নামে। তৈরী হয় ফরেন্সিক টিম। সন্দেহভাজন হিসাবে গ্রেপ্তার করা হয় রিজওয়ানার বাবা নবাব আলী কে। এরপরই পুলিশী জেরার মুখে মেয়েকে খুনের কথা স্বীকার করে নবাব।

যোধপুরের পুলিশ সুপার রাজন দুষ্মন্ত জানিয়েছেন আল্লাহর আশীর্বাদ পেতে ও অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচতেই একাজ করেছে বলে জানিয়েছে নবাব। সে বলেছে নিজের সবথেকে প্রিয় জিনিস কে কুরবানি দেবার কথা বলা হয় বলে সে তার বড় মেয়েকেই বেছে নেয় কুরবানি হিসেবে।

পুলিশ জানিয়েছে জেরায় নবাব বলছে সে ঘটনার আগের দিন মেয়েকে খেলনা ও খাবার কিনে দেয়। সেদিন নবাব বাড়ীর লোকজনের সাথে ছাদেই শুয়েছিল। রাতে সবাই ঘুমিয়ে পড়ার পর সে রিজওয়ানাকে নিয়ে নীচে নামে। কোরাণ পাঠ করার পর গলায় ধারালো ছুরি চালিয়ে মেয়েকে হত্যা করে উপরে গিয়ে শুয়ে পরে সে। সকালে রিজওয়ানার দেহ আবিষ্কারের পর বিড়ালের কামড়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলেও চালাবার চেষ্টা করে নবাব।

এখন প্রশ্ন আর কতদিন এই কুসংস্কারের বশে বলি হবে সাধারণ প্রাণ।