আসিফা হত্যা মামলায় অভিযুক্তের আইনজীবিকে দেওয়া হল অতিরিক্ত অ্যাডভোকেটজেনারেলের পদ।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ  অসীম সানওয়ে কে চিনতে পারছেন? না চেনারই কথা। ইনি হলেন আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এক অভিযুক্তের আইনজীবি। তবে এখানেই এনার পরিচয় শেষ নয়। এবার এনাকেই অতিরিক্ত অ্যাডভোকেট জেনারেলের পদে বসানো হল জম্মু ও কাশ্মীরে। রাজ্যের প্রায় সব মহলই এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা ও নিন্দা করেছেন।

প্রসঙ্গত জম্মু ও কাশ্মীরে বর্তমানে রাজ্যপাল শাষন চলছে। তার আগে জোটসরকার কার্যকরী ছিল। কিন্তু চলতি বছরের জুন মাসে কেন্দ্রের শাষক দল বিজেপি জোটসরকার থেকে সমর্থন তুলে নেয়। বাকী আর কোনো দলই একক ভাবে বা জোটে সরকার গঠনের অবস্থায় ছিলনা। ফলত রাজ্যে রাজ্যপাল শাষন জারী হয়।

কাঠুয়া কান্ডে বিজেপি যোগ বেশ স্পষ্ট করেই ছিল। প্রথম থেকেই তারা অভিযুক্তদের পাশেই দাঁড়ায়। বিজেপির দুজন নেতা অভিযুক্তদের সর্থনে মিছিলেও হাঁটেন। সেই মিছিলে দেশের জাতীয় পতাকা ব্যবহারের মত গুরুতর অভিযোগ ওঠে। দেশজোড়া নিন্দার মুখে পড়ে এক নেতা এ ও জানান যে তিনি যা করেছেন তা দলের নির্দেশেই করেছেন। এতে আরও বেকায়দায় পড়ে বিজেপি। এরপর আরও নানান ঘটনায় আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটে উপত্যকায়। যার ফলে মামলা পাঞ্জাব হাইকোর্টে স্থানান্তরিত হবে বলে জানায় সুপ্রীম কোর্ট। বর্তমানে এই মামলার তদন্তভার রয়েছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই এর হাতে।

তবে অসীম সানওয়েকে রাজ্যের অতিরিক্ত অ্যাডভোকেট জেনারেলের পদে বসানোর প্রতিবাদে সরব হয়েছেন রাজ্যের একাধিক ব্যক্তিত্ব। এতদিন জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী থাকা মেহবুবা মুফতি এদিন ট্যুইট করেন "এই সিদ্ধান্ত দুর্ভাগ্যজনক। যিনি খুনী বা ধর্ষকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাকে পুরস্কার দিয়ে ন্যায়বিচারের মূলে কুঠারাঘাত করা হল।" তিনি এ ঘটনায় রাজ্যপালের হস্তক্ষেপের দাবীও তুলেছেন। রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাও এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। প্রসঙ্গত এই দায়িত্ব পাবার পর কাঠুয়া মামলা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন অসীম সানওয়ে।

মামলায় আসিফার পক্ষে লড়ছেন আইনজীবি দীপিকা সিং রাওয়াত। তিনি অবশ্য জানিয়েছেন এই ঘটনায় মামলায় কোনো প্রভাব পড়বেনা। এর আগেও কোনো চাপের কাছে তিনি মাথা নোয়াননি। এবারেও তার অন্যথা হবেনা।