‘বিশ্বাসঘাতক’ দ্বারা নির্মিত ‘কলঙ্কের’ তাজমহলকে বেসরকারি হাতে তুলে দিতে চায়যোগী সরকার।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ বিতর্কের শুরু অনেক আগে থেকেই। ২০১৭ সালেই উত্তর প্রদেশে বিজেপি সরকারের শাসনের ছয় মাস উপলক্ষে রাজ্যের পর্যটন দফতর থেকে সম্প্রতি ঐতিহাসিক স্থাপনার একটি বুকলেট বের করা হয়। আর উত্তর প্রদেশ রাজ্যের পর্যটন দপ্তরের বুকলেটে তাজমহলকে না রাখার পর থেকেই বিশ্ববিখ্যাত এই স্থাপনাটি নিয়ে ভারতে বিতর্ক শুরু হয়। বিজেপির বিতর্কিত সংসদ সদস্য সঙ্গীত সোম জানিয়েছিলেন, পৃথিবীর অন্যতম সপ্তম আশ্চর্য তাজমহল ‘বিশ্বাসঘাতক’ দ্বারা নির্মিত হয়েছে এবং এটি ভারতীয় সংস্কৃতির ‘কলঙ্ক’।

এর পর নানান রকমের টাল বাহানার পর এবার, তাজমহলের দেখভাল কোন বেসরকারি সংস্থা ঙ্করুন বলে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জমা দিল যোগী সরকার। প্রসঙ্গত কিছু আগেই তাজমহলের ঠিক ঠাক যত্ন না নেবার জন্য সদেশের শীর্ষ আদালতের কটাক্ষ শুনতে হয় বিজেপি সরকার কে। আবার সেই দায়িত্ব থেকে হাত ধুয়ে ফেলতে চাইছে যোগী সরকার। জানা যাচ্ছে আজ একটি ভিশন ডকুমেন্ট জমাদেয় উত্তর প্রদেসের সরকার, সেখানে তাজমহল সংলগ্ন অঞ্চলে দূষণ নিয়ন্ত্রণে কি কি কাজ করা হয়েছে টা ব্যাখ্যা করা হয়েছে। ২৫০ পাতার এই হলফনামায় শুধু তাজমহল নয় আগ্রা ফোর্ট ফতেপুর সিক্রির মত বিভিন্ন হেরিটেজ সাইটকে বেসরকারি সংস্থার হতে তুলে দেবার জন্য আবেদন জানানো হয়েছে। সরকারের তরফে হলফনামা দিয়ে বলা হয় তাজমহলের সঠিক পরিবেশনের জন্য প্রাইভেট এবং পাবলিক সংস্থাগুলির সাহায্য নেওয়া যেতে পারে বলে কেন্দ্রের 'অ্যাডপ্ট হেরিটেজ স্কিম" প্রকল্প তাজমহলের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য করার আবেদন জানিয়েছে যোগী সরকার।

আর এতেই উঠেছে বিতর্ক। বর্তমানে, তাজমহলে ২ থেকে ৩ মিলিয়ন পর্যটক আসে যার মধ্যে ২,০০,০০০ পর্যটক বিদেশী, যা ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র। সবচেয়ে বেশি পর্যটক আসে ঠান্ডা মৌসুমে অক্টোবর, নভেম্বর ও ফেব্রুয়ারি মাসে। এই তাজমহল পৃথিবীর অন্যতম এক আশ্চর্য। এই তাজমহল ভারতের গৌরব। ভারত সম্পর্কে কিছু না জানলেও মানুষ তাজমহল সম্পর্কে জানেন। আর সেই ঐতিহ্য বিজেপি সরকারের উদাসীনতায় নষ্ট হচ্ছে বলে মনে করছেন অনেকেই। কেমন মাত্র মোঘল দের তৈরি বলেই তাজমহল নিয়ে বিজেপি ভাবিত নয় বলেই অনেকে অভিমত পোষণ করেছে।