"মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে ধর্ষণ ও সন্ত্রাস বাড়ছে।" অভিযোগ তুললেন বিজেপিনেতা।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ উত্তর প্রদেশের বিজেপি এমপি হরি ওম পাণ্ডে দাবি করেছেন, "ভারতে মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে ধর্ষণ ও সন্ত্রাসের মত ঘটনা বাড়ছে।" ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল। এই ঘটনাটি সংবাদ সংস্থা এএনআই প্রথম জনসমক্ষে আনেন।

জানা যাচ্ছে নিজের বক্তব্য রাখতে গিয়ে শালিলতার সকল মাত্রা ছাড়িয়ে যান বিজেপি নেতা। তিনি দাবি করেন, "মুসলিমরা ৩/৪ টা বিয়ে করে ৯/১০ টা সন্তান জন্ম দেয়। তারা রুটি-রুজি ও শিক্ষা না পেয়ে অরাজকতার পরিবেশ সৃষ্টি হবে। এ ধরণের পরিবেশ সৃষ্টি হলে নিশ্চিতভাবে দেশ আবারও বিভক্ত হবে এবং যেভাবে তারা শরীয়া আইন ও ধর্মীয় আইনের দাবি জানাচ্ছে ওভাবেই তারা পৃথক দেশ ও পাকিস্তানের দাবি জানাবে। ধর্ষণ, শ্লীলতাহানি ও সন্ত্রাসের মতো ঘটনার জন্য মুসলিমদের বাড়তি জনসংখ্যাই দায়ী। দেশের স্বাধীনতার পরে মুসলিমদের জনসংখ্যার হার একনাগাড়ে বেড়ে চলেছে। সময় থাকতে তা বন্ধ না করা গেলে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে।"

আর এই নিয়েই উত্তাল হয়েছে ভারতের রাজনীতি, এই বিষয়ে মুখ খুলেছেন অনেক বিদ্যজন। পশ্চিমবঙ্গের ‘ভাষা ও চেতনা সমিতি’র সম্পাদক ও কোলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজের সাবেক অধ্যাপক ড. ইমানুল হক আজ একটি মাধ্যমে জানান," স্বাধীনতার আগে মুসলিম জনসংখ্যা যত শতাংশ ছিল, তত শতাংশ এখন নেই। স্বাধীনতার আগে মুসলিমরা ২৫ শতাংশ ছিলেন। এখন তা ১৩ শতাংশ হয়েছে।"

এখানেই থেমে না থেকে তিনি আরও পরিসংখ্যান দেন, " ভারতে হিন্দুদের মধ্যে বহুবিবাহের ঘটনা ৫.৬ শতাংশ, সেখানে মুসলিমদের মধ্যে তা ৪.৬ শতাংশ। অর্থাৎ হিন্দুরা বহুবিবাহে এক শতাংশ বেশি এগিয়ে আছেন।"

বিজেপির বিরুদ্ধে বার বার অভিযোগ ওঠে যে বিজেপি মুসলিম বিরোধী, এবার বিজেপি নেতার এই মন্তব্যে এই অভিযোগ কেউ মান্যতা দিল বলে মত রাজনৈতিক মহলের।

 

পড়ুনঃ RSS এর কায়দায় জঙ্গি আন্দোলন করতে, তৈরি হচ্ছে মুসলিম সংগঠনের জমিয়ত ইউথ ক্লাব।