পরিস্থিতি উদ্বেগজনক, গত ৪৪ বছরে বন্যপ্রাণী কমে গেছে প্রায় ৬০ শতাংশ।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ লিভিং প্ল্যানেট রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ৪৪ বছরে ৬০ শতাংশ বন্যপ্রাণী কমে গেছে৷ এর জন্য তারা মানুষের খাদ্যাভ্যাস ও মানব আচরণকে দায়ী করেছে৷ এই রিপোর্টে বলা হয়েছে, ১৯৭০ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বিশ্বের ৬০ শতাংশ মেরুদণ্ডী প্রাণী মানুষের আচরণ ও খাদ্যাভ্যাসের কারণে পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে৷ বিশ্বের ১৬ হাজার ৭০০ প্রাণীর ৪০০০ হাজার প্রজাতির উপর গবেষণা করে এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন গবেষকরা৷

ডাব্লিউডাব্লিউএফ-এর আন্তর্জাতিক মহাসচিব মার্কো ল্যাবার্টিনি সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘‘পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ এবং তার আরও খারাপ হচ্ছে৷ তবে ভালো খবর হল, আমরা জানি যে সত্যিই কী ঘটছে৷’’



দক্ষিণ অ্যামেরিকার অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ল্যাটিন অ্যামেরিকার দেশগুলোর৷ গত ৪৪ বছরে তাদের ৯০ শতাংশ বন্যপ্রাণী বিলুপ্ত হয়েছে৷ মাত্র কয়েকশ’ বছরে যে হারে বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী বিলুপ্ত হয়েছে, বর্তমান হার তার চেয়ে একশ থেকে হাজার গুণ বেশি৷

পরিসংখ্যানটা ভীতিকর বলে জানিয়েছেন অস্ট্রিয়ার এক গবেষক, যিনি এই প্রতিবেদনের অন্যতম লেখক৷ ১০ হাজার বছর আগে বন্যপ্রাণী বৃদ্ধির হার ছিল পুরো উলটো৷ সমুদ্রের তলদেশে প্রবাল ধীরে ধীরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এবং তা ফিরিয়ে আনার সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ বলে জানালেন গবেষকরা৷ তাদের মতে, গত ৪০ বছরে ৭০ থেকে ৯০ শতাংশ প্রবাল বিনষ্ট হয়ে গেছে৷



ডাব্লিউডাব্লিউএফ-এর পদক্ষেপের কারণে বাঘ, গ্রিজলি ভাল্লুক, নীল পাখনার টুনা এবং ঈগলদের সংখ্যায় উন্নতি হয়েছে৷ ল্যামবার্টিনি বলেন, ‘‘আমরা যদি এ সব উদ্যোগ না নিতাম, তাহলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতো৷’’