শেষ উদ্যোগ বাম জামানায়,তারপর আর কেউ মুখ ফিরে তাকায়নি। কোচবিহারের কিছু কথা।

১০দিক২৪, সম্রাটঃ হিমালয়ের পাদদেশে পুরাণে কথিত শিব যেখানে বিহার করতে স্বর্গ থেকে নেমে এসেছিলেন, সেই দেবভূমি কোচবিহার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে যেন অমরাবতী। এর অমোঘটানই হয়তো ঐতিহাসিক যুগে রাজাদের রাজত্ব স্থাপনের পিছনে অন্তঃশীলার মতন বয়ে চলেছিলো। পাল-সেন-ক্ষেণ-কোচ কত বীরত্বের কথা আজও লুকিয়ে রয়েছে সমস্ত কোচবিহার জেলা জুড়ে। একদিকে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য- অপরদিকে ইতিহাসের লুকোচুরি এই দুয়ের অবস্থানে পর্যটন মানচিত্রে কোচবিহারের অবস্থান শীর্ষে থাকবার কথা- অথচ কোন অদৃশ্য কারণে আজও অনাবিষ্কৃত রয়ে গেছে কোচবিহারের অনেক মনোলোভা রূপ কিংবা ইতিহাসের ফিসফিস কথা।







আর যাওবা বাম জামানায় উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছিল বর্তমান সময়ে এসে প্রচলিত পর্যটন কেন্দ্রগুলি চরম অবহেলায় শেষ হবার মুখে। রসিকবিল থেকে রসমতি কিংবা গোসানীমারি যেখানেই যাবেন সেখানেই চরম অবহেলা স্পষ্ট। এমনি কিছু পর্যটনকেন্দ্রের নমুনা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি-

১) রসিকবিলঃ বর্তমান উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের বিধায়ক এলাকা লাগোয়া রসিকবিল চরমতম অবহেলায় ধুঁকছে। এর প্রবেশপথের করুণ অবস্থা থেকে ভেতরের পরিকাঠামো সর্বত্রই যেন অবহেলা । এখানে শেষ কাজ ২০০৩ এ তৈরি নজর মিনার। এরপর দু-একটি উদ্যোগ যে নেওয়া হয়নি তা নয়, তবে তা নামমাত্র। অথচ স্বল্প ব্যায়ে রসিকবিলকে অমরাবতীতে পরিণত করা সম্ভব।




[caption id="attachment_7807" align="aligncenter" width="614"] বোচামারি বা রসিকবিল[/caption]

২) রসমতিঃ কোচবিহারের পুণ্ডিবাড়ি থেকে অল্প দূরত্বে অবস্থিত ‘রসমতি’ নদীঘেরা এই পর্যটন কেন্দ্র একসময় ভীষণ জনপ্রিয় ছিল, অথচ বামজামানায় তৈরি নজরমিনার এখানের সেই অতীতের স্মৃতি বহন করে চলছে। বর্তমান সরকারের জামানায় গণ্ডার ছাড়ার উদ্যোগ নেওয়া হলেও আজও তা সম্পূর্ণ হয়নি ।

[caption id="attachment_7806" align="aligncenter" width="640"] রসমতির ছবি[/caption]

৩) গোসানীমারিঃ কোচবিহারে ইতিহাসের খনি ‘গোসানিমারি’ । খননের অভাবে কত ইতিহাস যে এখানে লুকিয়ে আছে তা অজানাই রয়ে গেছে । সম্প্রতি গোসানিমারিতে জমির কাজ করতে গিয়ে উঠে এসেছে প্রাচীন বাসনপত্র সহ বেশ কিছু সামগ্রী । ইতিহাসেরটানে প্রচুর মানুষের সমাগম হয় গোসানীমারির ‘রাজ ঢিবি’ তে । অথচ কোন টয়লেটের ব্যবস্থা এখানে যেমন নেই, নেই পানীয় জলের ব্যবস্থাও । সম্প্রতি ঢিবির ওপরে অবস্থিত দুটি স্নানাগারকে বাঁশ দিয়ে ঘিরে দেওয়া হচ্ছে, যা পর্যটকদের কাছে খুবই দৃষ্টিকটু ।

[caption id="attachment_7808" align="aligncenter" width="603"] গোসানীমারি[/caption]





সব মিলিয়ে প্রবল সম্ভাবনাযুক্ত কোচবিহারের পর্যটন ব্যবস্থা সামান্য উদ্যোগেই তার আমূল পরিবর্তন সম্ভব হলেও বিন্দুমাত্র আন্তরিক উদ্যোগ লক্ষকরা যায়না । শুধু প্রচলিত এই পর্যটন কেন্দ্রগুলিই নয় এমন বেশকিছু স্থান রয়েছে যেখানে পর্যটন ব্যবস্থা শুরু করে কোচবিহারের পর্যটনে বিপ্লব আনা সম্ভব।