মোহনবাগানের বার্ষিক সভায় চললো হাতাহাতি, গুরুতর অসুস্থ সচিব অঞ্জন মিত্র।

১০দিক২৪ঃ প্রতি বছর সকল সদস্য দের নিয়ে বার্ষিক সাধারণ সভা আয়োজিত হয়। এবার ও সেই মত আজ আয়োজন করা হয়েছিল মোহনবাগান ক্লাব কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে। আর সেই মোহনবাগানের বার্ষিক সাধারণ সভায় এক কালো দিনের সাক্ষি থাকলো বঙ্গবাসি।

রাজনৈতিক দলের মধ্যে অনেক সময় ই গোষ্ঠী দ্বন্দের খবর উঠে আসে। কিন্তু ফুটবল ক্লাবের গোষ্ঠী দ্বন্দে অবাক ফুটবল প্রেমীরা। মোহন বাগান ক্লাবে মূলত দুটি গোষ্ঠী তে বিভক্ত এক দিকে অঞ্জন মিত্র এবং অন্য দিকে টুটু বসু। আজ সভার শুরুতেই বচসা থেকে হাতাহাতি তে জড়িয়ে পড়েন অঞ্জন ও টুটু গোষ্ঠীর সদস্যরা। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হচ্ছে দেখে সভা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেন সচিব অঞ্জন মিত্রের গোষ্ঠীর সদস্যরা ৷ যদিও সভা চালিয়ে যাওয়ার দাবি জানান সভাপতি টুটু বসু৷

জানা যাচ্ছে ক্লাবে গণ্ডগোলের সূত্রপাত হয় সৃঞ্জয় ও দেবাশিসের ইস্তফা দেওয়ার পর থেকে৷ টুটু বসুর প্রিয় পাত্র অঞ্জন মিত্রের সঙ্গে এক সঙ্গে দীর্ঘদিন ক্লাব পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন সৃঞ্জয়-দেবাশিস৷ কিন্তু ক্ষমতা হস্তগত করার জন্য অঞ্জনের বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ এনে ক্লাব ছাড়ার হুমকি দেন টুটুর এই দুই সেনা৷ শুধু হুমকি নয়, শেষ পর্যন্ত পদ ছেড়ে বাইরে থেকে অঞ্জন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ঘুটি সাজান সৃঞ্জয়-দেবাশিস৷

জানা গিয়েছে, মূলত দু’টি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে ঘুটি সাজাচ্ছে অঞ্জন মিত্রের শাসক গোষ্ঠী।
প্রথমত, মোহনবাগানের কোম্পানিগত চরিত্র বদল করা। বর্তমানে প্রাইভেট লিমিটেড হিসাবে নথিভুক্ত কোম্পানিকে পাবলিক লিমিটেডে রূপান্তরিত করা। সে ক্ষেত্রে পাবলিক লিমিটেডে শেয়ার গ্রহণকারী সদস্য সংখ্যা বাড়ানো সম্ভব হবে।

দ্বিতীয়ত, মোহনবাগানের পরিচালনমণ্ডলীতে দু’টি নতুন পদের সৃষ্টি করা। একটি, ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট সেক্রেটারি, অন্যটি গেম সেক্রেটারি। এমনটাও জানা যাচ্ছে, মেয়ে সোহিনীকে ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট সেক্রেটারি পদে বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে অঞ্জনের।

এমন পরিস্থিতিতে সমস্যা সমাধানের জন্য আজ ২৩ জুন ক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ কিন্তু ক্লাব তাঁবুতে বার্ষিক সভা শুরুর আগেই টুটু ও অঞ্জন গোষ্ঠীর সদস্যদের মধ্যে বচসা শুরু হয়৷ যা শেষ পর্যন্ত হাতাহাতির রূপ নেয়।

আর সদস্যদের তাণ্ডব দেখে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন সচিব অঞ্জম মিত্র৷ এইরূপ পরিস্থিতিতে সভা শুরুর আগেই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি৷ টুটু বসুর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হতে থাকে সদস্য দের। মোহন বাগানের মত শতাব্দী প্রাচীন ক্লাবে এঘটনার ফলে ঐতিহ্যে দাগ লাগলো বলেই মত ফুটবল প্রেমী দের।