স্মার্টফোন কে বাঁচান গরম হবার হাত থেকে

বর্তমানে আমাদের দেশে ৩৩৭ মিলিয়ন স্মার্টফোন ব্যবহার হয়। এই স্মার্টফোন ব্যবহারের প্রচলন যত বাড়ছে ততই বাড়ছে স্মার্টফোন কে কেন্দ্র করে মানুষের উদ্বিগ্ন হবার ঘটনা। ব্যাটারির চার্জ ফুরিয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে চার্জের সময় ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যাওয়ার ঘটনা প্রায়শই আমাদের চিন্তার কারন হয়ে দাঁড়াচ্ছে।
প্রথমেই জেনে রাখা ভালো, স্মার্টফোন গরম হবার অন্যতম মুখ্য কারন স্মার্টফোনের প্রসেসর। যত দ্রুত আপনার ফোনের প্রসেসর কাজ করে তত দ্রুত ফোনের প্রসেসর অভ্যন্তরে অবস্থিত ইলেকট্রন কনা গুলি নিজেদের মধ্যে স্থানের পরিবর্তন করে এবং এই স্থান পরিবর্তনের সময় পরস্পরের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তাপের উৎপত্তি হয়। দিন দিন ফোনের সাইজ যত পাতলা হচ্ছে তত এই উষ্ণতা সঞ্চারিত হবার যায়গা না পেয়ে ফোনের বডিকে গরম করছে। এবং এর ফলেই প্রধানত আমারা তাপ উপলব্ধি করি।

ফোন গরম হলে কি কি হতে পারে?
১। আপনার ফোনটি যাতে অতিরিক্ত গরম না হয়ে যায় তার জন্য নিজের প্রোগ্রাম গুলকে ধিরে করে দেবে যার ফলে ফোন হাং হতে পারে।
২। ফোন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে।

তবে আমাদের এই পক্রিয়া গুলো ব্যবহার করলে খুব অনায়াসেই আপনার স্মার্টফোনের হটাত করে গরম হয়ে যাওয়া কে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন।

১। ফোনের চার্জ একটি বড় বিষয়। স্মার্ট ফোন গুলি আমারা ব্যবহার করি কখন ও গ্যেম খেলা বা কোন ফাইল ডাউনলোড করতে। খেয়াল রাখতে হবে তখন যেন আপনার ব্যাটারি ৪০% এর বেশি চার্জ থাকে এতে ফোন গরম হবার সম্ভবনা কম থাকে।

২। ফোনের কভার নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমারা অনেক সময় ভুল করি। ভালো দেখতে কভার নিতে গিয়ে অনেক সময় আমারা এটা ভুলে যাই ফোনের ব্যাটারির নিরাপত্তার কথা। ফোনের তাপ বেসিরভাগ ক্ষেত্রেই হেভি কভারের জন্য তাপ কে পরিবেশে সঞ্চারিত করতে পারে না, যার ফলে ফোন গরম হয়ে পরে।

৩। অনেকগুলি অ্যাপস বা প্রোগ্রাম খুলে রাখলে অনেক ক্ষেত্রে অসুবিধা হতে পারে, তবে যদি আপনার ফোনে উন্নতমানের স্নাপড্রগন এর প্রসেসর এবং ৩ জিবি বা তার বেশি র‍্যাম থাকে তবে এবিষয়ে আপনার না চিন্তিত হলেও হবে।

৪। ফোনের র‍্যাম কে পরিষ্কার রাখুন, অপ্রয়োজনীয় ফাইল ফোনে না রাখাই ভালো। এবং কোন ভাবেই নিজের ফোন ম্যেমরি কে ৮০% এর বেশি ভর্তি রাখবেন না, প্রয়োজনে মেমোরি কার্ডের ব্যবহার করুন।

৫। ফোনে এমন কোন অ্যাপস রাখবেন না যেটা আপনাকে বার বার পপ আপ নোটিফিকেশন দেয়। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপস ফোনে রাখবেন না এতে ফোন দ্রুত গরম হয়। চেষ্টা করবেন প্লেষ্টোরের অ্যাপস গুলিকেই ব্যবহার করতে।

৬। ফোনের ব্রাইটনেস বাড়ালে ফোন গরম হয়, এক্ষেত্রে ফোনের ব্রাইটনেস কে অটো মোড এ রাখুন। এতে আপনার ফোন নিজের থেকেই দিনের আলোয় বা রাতের অন্ধকারে আপনার দেখার মত আলো কে কনট্রোলে রাখবে।

৭। অনেক ক্ষেত্রে অনেক যায়গায় ফোনে কম টাওয়ার আসে, সে ক্ষেত্রে ফোন তার টাওয়ার সিগন্যাল অতিরিক্ত পাওয়ার পাঠায় ফোনের সিগন্যাল কে সচল রাখতে এক্ষেত্রে ও ফোল গরম হয়ে যায়। আপনি যদি এমন কোন যায়গায় থাকেন যেখানে ফোনের টাওয়ার নেই তাহলে আপনার ফোনটিকে এরোপ্লেন মোডে রাখতে পারেন এতে আপনার ফোন গরম হবার হাত থেকেও বাঁচবে আর ফোনের চার্জ ও বাঁচবে।

৮। ফোনের সফটওয়্যার এবং ব্যবহৃত অ্যাপস গুলিকে সব সময় আপডেট রাখবেন।

এবার জেনে নেওয়া যাক ফোনের নর্মাল কত ডিগ্রি তে গরম হলে আপনি চিন্তিত হবেন ! ভারতের আবহাওয়াতে ৪০ থেকে ৪২ ডিগ্রি যদি আপনার ফোনের টেম্পারেচার থাকে তবে আপনার চিন্তিত হবার কারন নেই। তবে এর থেকে বেশি হলে অবশ্যই সেটা চিন্তার বিষয়।