কেরালার দশটি ওয়েবসাইট হ্যাক করে জাল স্কলারশিপ চক্র। গ্রেফতার চোপড়ার যুবক।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ রাষ্ট্রীয় সূচনা বিজ্ঞান কেন্দ্রের ওয়েবসাইট হ্যাক করে সংখ্যালঘু স্কলারশিপ লিস্টে নাম উঠিয়ে স্কলারশিপ পাইয়ে দেওয়ার নামে কোটি কোটি টাকা প্রতারণা করার অভিযোগে চোপড়ার এক যুবক কে গ্রেপ্তার করল কেরালা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চ। ধৃত যুবকের নাম বাবুল হোসেন। কেরালার দশটি কলেজের ওয়েবসাইট হ্যাক করে বাবুল ছাত্রদের স্কলারশিপ পাইয়ে দেওয়ার জন্য জালচক্র ফেঁদে ছিল বলে অভিযোগ। চোপড়ার কোটগছ হাইস্কুলের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ধৃত বাবুল হোসেনকে আজ ইসলামপুর মহকুমা আদালত থেকে ট্রানজিট রিমান্ডে কেরালায় নিয়ে যাওয়া হয়। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।



উত্তর দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার জানিয়েছেন, দিন ছয়েক আগে কেরালা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চের অনীশ করিম ও প্রসাদ এম আর নামে দুজন অফিসার উত্তর দিনাজপুর জেলায় আসে। তারা উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া থানার পুলিশের সাহায্য নিয়ে বাবুল হোসেন নামে প্রতারককে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার রাতে। জানা গিয়েছে, রাষ্ট্রীয় সূচনা বিজ্ঞান কেন্দ্রের মাধ্যমে কেরালার ১০ টি কলেজের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মেধাবী ছাত্রদের স্কলারশিপ দেওয়ার ওয়েবসাইট ও প্রক্রিয়াটিকেই হ্যাক করে বাবুল হোসেনের প্রতারণা চক্র কেরালার ছাত্রদের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা তোলে।



এইসব ছাত্ররা প্রতি বছর দশ হাজার টাকা করে স্কলারশিপ পাবে। ওয়েব সাইটে স্কলারশিপ প্রাপকের তালিকায় নাম নথিভুক্ত করার টোপ দিয়ে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীর কাছ থেকে টাকা তোলে বাবুল হোসেন। কেরালার শিক্ষা দপ্তরের ডিরেক্টর এম এস জয়া নামে এক আধিকারিকের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে কেরালার সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চ। উত্তর দিনাজপুর জেলা পুলিশের সাথে যৌথ অভিযান চালিয়ে জেলার চোপড়া থানার কোটগছ গ্রামের বাড়ি থেকেই গ্রেপ্তার করা হয় বাবুল হুসেনকে। আজ তাকে ইসলামপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়। সাত দিনের ট্রানজিট রিমান্ডে কেরালায় নিয়ে যায় কেরালা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চ। এই প্রতারনাচক্রের সাথে আর কে বা কারা যুক্ত রয়েছে তার তদন্ত করতেই ধৃত বাবুল হোসেনকে জেরা করা হবে বলে কেরালা পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে।