এবার সরাসরি দুর্নীতির অভিযোগে নাম জড়াল মুখ্যমন্ত্রীর।মামলা গ্রহন করল ডিভিশনবেঞ্চ।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ দলীয় দুর্নীতি তো ছিলই। সারদা-নারদা কাঁটা যথেষ্টই বেকায়দায় ফেলছিল রাজ্যের শাষক দল তৃণমূল কে। এবার বিপাকে পড়লেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তাঁর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির মামলা দায়ের হল আদালতে। মামলাকারী কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী।

এতদিন সমর্থকদের গলায় শোনা যেত দলে খারাপ বা দুর্নীতিগ্রস্ত লোক থাকতেই পারে। কিন্তু দিদির নামে সে অভিযোগ নেই। এবারে ধাক্কা খেল সেই আশ্বাসটুকুও। মাদার ডেয়ারীর শেয়ার বিক্রি কান্ডে সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামেই হাইকোর্টে মামলা দায়ের করলেন অধীর চৌধুরী।



তিনি জানালেন মাদার ডেয়ারী একটি আধা সরকারী প্রতিষ্ঠান। এরকম কোনো প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বিক্রি করতে হলে সরকারকে কিছু নিয়ম পালন করতে হয়। কিন্তু সেসব নিয়ম পূরণ না করেই কীভিবে মমতা ব্যানার্জীর সরকার নিজের সমস্ত শেয়ার বেচে দিতে পারে তার কৈফিয়ত দাবী করেই এই মামলা দায়ের করেছেন তিনি।

আধা সরকারী প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বিক্রির ক্ষেত্রে সরকার কে দুটি পদ্ধতির মাধ্যমে সে কাজ করতে হয়। পাবলিক ইস্যু বা সুইস চ্যালেঞ্জ মেথড। সরাসরি বিজ্ঞাপন দিয়ে শেয়ার বিক্রির কথা জানানো ও সেই সংখ্যক শেয়ার বাজারে নথিভুক্ত করা হল পাবলিক ইস্যু। তুলনামূলক ভাবে স্যুইস চ্যালেঞ্জ মেথড বেশ জটিল।



কিন্তু এক্ষেত্রে মানা হয়নি কোনো নিয়মই। হঠাৎ করেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নেন মাদার ডেয়ারীর সরকারী স্বত্ত্ব বিক্রি করা হবে মমতা ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ী মায়াঙ্ক জালানের সংস্থা কেভেন্টার্সের কাছে। রাতারাতি এই সিদ্ধান্ত পাশও করিয়ে নেওয়া হয়।
সরকার তার অংশ অর্থাত মাদার ডেয়ারীর ৪৭% বিক্রি করে মাত্র ৮৪.৫ কোটি টাকায়। যেখানে কেভেন্টার্স সিঙ্গাপুরের এক কোম্পানীর কাছে এর মাত্র ১৫% শেয়ার বিক্রি করেছে ১৭০কোটি টাকায়।

এইসবের বিরুদ্ধেই প্রশ্ন তুলে কোর্টের দারস্থ হয়েছেন অধীর চৌধুরী। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন প্রথমত বিক্রির সময় কোনো নিয়ম মানা হয়নি। তা ছাড়াও এত টাকা ক্ষতি করে মমতা ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীর কাছে মাদার ডেয়ারীর শেয়ার বিক্রির উদ্দেশ্য কী ছিল তা জানাই তাঁর প্রধান লক্ষ্য। আজই কলকাতা হাইকোর্টের দেবাশীষ করগুপ্তের ডিভিশন বেঞ্চে মামলাটি গৃহীত হয়েছে।