শিক্ষকের গাফিলতিতে মাধ্যমিকের পরীক্ষা দিতে না পেরে ক্ষোভে ফেটে পড়লেন তিনছাত্র।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষা মাধ্যমিক পরীক্ষা। আর সেই পরীক্ষাই শুধু মাত্র স্কুলের গাফিলতিতে দিতে পারল না তিন ছাত্র ছাত্রী। মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়া হলনা বিজলি মণ্ডল,দেবাশীষ বর, বৈশাখী কমিল্যা তিন ছাত্র ছাত্রীর।।আর এই ঘটনার জন্য ছাত্র ছাত্রীরা দায়ী করলেন স্কুল কর্তৃপক্ষ কে। স্কুল কর্তৃপক্ষের নজিরবিহীন উদাসীনতার চরম মূল্য দিল পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তিন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী।

মঙ্গলবার মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হয়ে গেলেও এ বছর আর পরীক্ষায় বসা হবে না তাদের। কারণ, এগরা ২ ব্লকের ভবানীচক হাই স্কুলের এই তিন ছাত্র ও ছাত্রীর এডমিট কার্ড আসেনি। তাই এ বছর আর পরীক্ষায় বসা হবে না এগরা ২ ব্লকের ভবানীচক হাই স্কুলের তিন ছাত্র - ছাত্রীর।

গত ২ রা ফেব্রুয়ারি মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে এডমিট কার্ড বিতরণ করা হয় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের। সেই সঙ্গে কোন স্কুলের এডমিট কার্ড সংক্রান্ত কোনো সমস্যা থাকলে ৯ ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে লিখিত আকারে রিজিওনাল কাউন্সিল অফিস জানানোর জন্য নির্দেশিকা জারি করে পর্ষদ।




এই তিন ছাত্র ছাত্রীর এডমিট কার্ড যে আসেনি তা সেদিন থেকে লক্ষ্যই করেনি স্কুল কর্তৃপক্ষ। সব এডমিট কার্ড বিতরণের পরও তিনজন কার্ড না পাওয়ায় বিষয়টি নজরে আসে গতকাল সোমবার। পরীক্ষা শুরুর আগের দিন অর্থাৎ গতকাল স্কুলের তরফে যোগাযোগ করা হয় মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এর সাথে। পর্ষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ওই তিন ছাত্র ছাত্রীর রেজিস্ট্রেশনই হয়নি নবম শ্রেণীতে। যদিও তিন ছাত্র ছাত্রীর দাবি তারা নিয়ম মেনেই আর সব ছাত্র ছাত্রীদের মতোই রেজিস্ট্রেশন করেছে নবম শ্রেণীতে। এডমিট না আসার জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করছে তারা।

তাদের সব বন্ধু বান্ধব যখন পরীক্ষা দিচ্ছে তখন বাড়িতে বসে স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে রাগে ফুঁসছে ছাত্র-ছাত্রীরা। জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষায় বসতে না পারায় হতাশ এই তিনজন। তাদের জীবন থেকে একটা বছর এভাবে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় মানসিকভাবে বিপর্যস্ত তারা। দেখে নিন কি বলছেন তারা।