উপযুক্ত আলুর দাম না পাওয়ায় ফের আত্মঘাতী কৃষক।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ " আলু"যা আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় দরকারি জিনিস।কিন্তু যারা এই আলু ফলায় তারা কি আলুর দাম পায়?
উত্তর টা না।

দাম তো পাইই না উল্টোদিকে ঋণের টাকা শোধ করতে না পারার আশঙ্কায় কীটনাশক খেয়ে আত্মঘাতী হলেন কালনার কয়াগ্রামের মাধব মাঝি নামে এক ভাগ চাষি। লোকসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তাঁর রাজ্যে ‘উন্নয়ন’ হচ্ছে বলে প্রচার চালাচ্ছেন।আদৌ কি উন্নয়ন হচ্ছে । মুখ্যমন্ত্রী বলছেন কৃষকের আয় বেড়েছে তিনগুণ । ঠিক এই পরিস্থিতিতেই তাঁর রাজ্যে আত্মহননের পথ বেছে নিলেন আরো এক ভাগ চাষি। চলতি বছরের শুরুতেই অকাল বৃষ্টির কারণে ব্যাপক ভাবে ক্ষতি হয় আলু চাষের। তারপর বারবার ঋণ মকুবের আর্জি জানিয়ে প্রশাসনের দারস্থ হন আলু চাষিরা। রাস্তায় পথ অবরোধ, মিটিং মিছিল করেও সরকারের কাছে নিজেদের সমস্যার কথা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু এত করেও তৃণমূল সরকারের পক্ষ থেকে কোনও আশ্বাসই পাননি তাঁরা। তাই একের পর এক আলুচাষিরা আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছেন।

কালনার কয়াগ্রামের মাধব মাঝি নামে এই ভাগ চাষি স্থানীয় গ্রামীণ ব্যাঙ্কে ঋণ নেন সেই সঙ্গে স্ত্রী-র গহনা বন্ধক রেখে ভাগে চার বিঘা জমিতে চাষ করেন মাধব মাঝি। এই চার বিঘার মধ্যে আড়াই বিঘা জমিতে হতো আলুর চাষ। কিন্তু ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে টানা বৃষ্টিতে জমিতে চাষের সব আলুই জলের তলায় চলে যায়।মাধব মাঝির পরিবার বলে যে বৃষ্টিতে জলের তলায় চলে যায় সমস্ত আলু, ফলে সব ফসল পচে যায়। যেটুকু আলু উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে তাতে আয় হয়নি কিছুই। ফলে প্রাপ্য-টাকায় ঋণ শোধ করা এবং গহনা ছাড়ানো সম্ভব ছিল না।কিন্তু সরকারের তরফে কোনও সুবিধা পাওয়া যায়নি। রবিবার সন্ধে নাগাদ দুশ্চিন্তায় কীটনাশক খেয়ে নেন মাধব মাঝি। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কালনা মহকুমা হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়। সোমবার সকালে হাসপাতালেই মৃত্যু হয় মাধব । আদৌ উন্নয়ন হচ্ছে?

উন্নয়ন হলেও লাভবান হচ্ছে করা? এখন এটাই দেখার আর কতো প্রাণ গেলে টনক নড়বে প্রশাসনের।