"পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্র নেই, শেষ হয়ে গেছে" : তৃতীয় লিঙ্গের লেখিকা রানী মজুমদার।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ তৃতীয় লিঙ্গের অন্যতম লেখিকা রানী মজুমদারের দেওয়া সাক্ষাৎকারে বারবার উঠে এসেছে বর্তমান সরকারের প্রতি ক্ষোভ। তাঁর কোনো আস্থা নেই রাজ্য সরকারের উপর। তৃণমূল সরকারের প্রতি বারবার উঠে এসেছে তাঁর অভিযোগ। তিনি বলেন, "আমি একজন ট্রান্সজেন্ডার। শরীরে পুরুষ হলেও মনে নারী।আপনারা জানেন কলকাতার এক ডাক্তারের ভুল সার্জারির ক্ষত আমাকে সারাজীবন বয়ে বেড়াতে হচ্ছে। এই খবর বেরিয়েছিল এবেলাতেও।কিন্তু আমাদের রাজ্য সরকার তৃণমূল সরকার ট্রান্সজেন্ডার মানুষদের কুকুর-ছাগল মনে করে। ভুল সার্জারির ক্ষত নিয়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে আমি সমস্ত দপ্তর, বিকাশ ভবন, কনজিউমার ফোরাম সমস্ত জায়গায় গেছি। দিনের পর দিন, মাসের পর মাস, বছরের পর বছর। কিন্তু তৃণমূল সরকার আমার অভিযোগকে পাত্তা দেয়নি"।

তিনি আরও বলেন,"আমি মন্ত্রী সাধন পান্ডের কাছেও গিয়েছিলাম মুখ ঢাকা দিয়ে। কিন্তু ডাক্তারের পক্ষে দাঁড়িয়েছে সবাই।কিন্তু আমি আমার প্রমান নিয়ে আমার অভিযোগ নিয়ে দিনের পর দিন ঘুরেছি। আমার তো আঁধার কার্ড আছে, ভোটার কার্ড আছে। আমি তো একজন নাগরিক। তাহলে এই সরকার কেনো আমার অভিযোগ শুনবে না। আমি একজন ট্রান্সজেন্ডার লেখিকা। বিভিন্ন সংবাদপত্রে আমার লেখা পড়েছেন সবাই। ১০দিক২৪ এর মারফত আমার এই বার্তা যে গণতন্ত্র যে নেই তা যে শেষ হয়ে গেছে সেটা পুনরুদ্ধারের প্রয়োজন। এই বার্তা আমার ট্রান্সজেন্ডার ভাই বোনদের জন্যও"।

পশ্চিমবঙ্গে যে গণতন্ত্র নেই, মানবাদিকারও যে শেষ তা বারবারই তাঁর কথায় স্পষ্ট।এখানে কথা বললেই টুটি চিপে ধরে সবাই এরকমও অভিযোগ তার গলায়।তিনি আরো বলেন, "মানুষের নামে সবকিছু অথচ মানুষ বিরোধী সবটা।আজ পশ্চিমবঙ্গ সরকার ট্রান্সজেন্ডার কমিউনিটির জন্য কিচ্ছু করেনি।তাদের কোনো কর্মসংস্থান করেনি, তাদেরকে সঠিক পথে আনার জন্য কিছু করেনি, তাদের শিক্ষার ব্যাবস্থা, বিকল্প কোনো রোজগারের ব্যবস্থা কিছুই করেনি।যেখানে অন্যান্য রাজ্যগুলি করেছে। বারবার আমার বার্তা এই যে কিছু না করা সরকার ঢাকঢোল পেটানো সরকার একে বাদ দিয়ে নতুন করে গণতন্ত্র আনুন।