এ যেনো এক অন্য কিছু করে দেখালেন উত্তর কলকতার বাম প্রার্থী কনিনীকা বোস (ঘোষ)।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ অন্য রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা যখন ভোট কেনার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছেন তখন এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন উত্তর কলকতার বাম প্রার্থী। এলজিবিটিকিউ-দের অধিকার আদায়ের নানা প্রতিশ্রুতি সিপিএমের ইস্তাহারে স্থান পেয়েছিল আগেই।এ বার তাঁদের সঙ্গে বৈঠক করলেন উত্তর কলকাতার বামফ্রন্ট প্রার্থী কনীনিকা বসু (ঘোষ)।নির্বাচনী প্রচারে এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষদের সঙ্গে বসার উদ্যোগ রাজ্যে এই প্রথম।স্বভাবতই এতে আশার আলো দেখছেন রূপান্তরকামীরা। কনীনিকা বসু বলেন,'নির্বাচন মানে অনেক আলাপ-আলোচনার সুযোগ।আমাদের ইস্তাহারে এবার এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষদের অধিকারের কথা তুলে ধরা হয়েছে। সে লড়াই চলবে নির্বাচনের পরও।তা নিয়েই আলাপচারিতার একটা মঞ্চ তৈরির চেষ্টা করলাম আমরা।সিপিএম প্রান্তিক মানুষদের কথা বলে। তাঁদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করে। আমরা ওঁদের বলতে চেয়েছি, যে লড়াইয়ের কথা জানানো হয়েছে ইস্তাহারে, তা চলবে।'

রিপন স্ট্রিটের সরু গলিটা পেরিয়ে কান্তি প্রেস। সেখানেই,এসএফআইয়ের রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের উপস্থিতিতে শুরু হয় বৈঠক।এসএফআইয়ের রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অপ্রতীম রায়ও এই কমিউনিটির সদস্য।কিন্তু, যে দিন দলের মিছিলে নিজের যৌন পরিচয় প্রকাশ্যে এনে আরও অনেক অপ্রতীম হাঁটবেন,সে দিন বুঝতে পারব লড়াইটা গড়ে উঠছে।২০১৮-র গোড়ায় ফুয়াদ হালিমের নেতৃত্বে বামফ্রন্টের ইস্তাহারে এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষের কথা কী ভাবে বলা সম্ভব,তা নিয়ে ওয়েস্টবেঙ্গল ফোরাম ফর জেন্ডার অ্যান্ড সেক্সুয়াল মাইনরিটি রাইটসের সঙ্গে আলোচনা শুরু হয়েছিল।স্যাফোর আরেক প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মীনাক্ষী সান্যাল ছিলেন সে আলোচনার অন্যতম সদস্য। তাঁর কথায়,'আমরা বলেছিলাম,আলোচনা যেন হারিয়ে না যায় দলীয় গঠনতন্ত্রের আড়ালে।ইস্তাহার প্রকাশ হওয়ার পর সেটা হয়নি দেখে ভালো লেখেছে।ওঁরা অনেক বিষয় সুস্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করেছেন ওঁদের ইস্তাহারে।আমাদের আশা,নির্বাচনের পর সেই লড়াইয়ের কথা হারিয়ে যাবে না।'রূপান্তরকামীদের সংগঠন এটিএইচবি-র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য রঞ্জিতা সিনহা বলেন,'আমাদের জন্য কোনও রাজনৈতিক দলের দরজা সেভাবে এখনও পর্যন্ত খোলা ছিল না। আমাদের হয়ে যাঁরা কথা বলবেন,তাঁদের স্বাগত।রবিবারের আলোচনা আমাদের কিছুটা আশার আলো দিল।নির্বাচনের পর পাশে থাকার,লড়াই করার অঙ্গীকার হারিয়ে যাবে না,সেটাই আশা করব।'