যখন কৃষ্ণচূড়ার লাল পথ নেমে আসে। ১৫ হাজারী মিছিল দেখল বাঁকুড়া।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ আজ বাঁকুড়ার CPIM প্রার্থী অমিয় পাত্রের সমর্থনে মিছিল করেছিলেন বাম নেতৃত্বগণ।সেই মিছিলে অংশগ্রহণ করেছিলেন বিষ্ণুপুরের প্রার্থী সুনীল খাঁ, বাঁকুড়ার প্রাক্তন সাংসদ বাসুদেব আচার্য্য।CPIM -এর রাজ্য সম্পাদক সূর্য্যকান্ত মিশ্র এবং বহু সাধারণ মানুষ।

বৃহস্পতিবার লাল মাটির দেশে বামফ্রন্টের তরফ থেকে এক বিরাট বর্ণাঢ্য মিছিলের আয়োজন করাহয়েছিল।পদযাত্রায় অংশ নিয়েছিল বহু মানুষ। সূত্রে খবর প্রায় ১৫০০০ হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেছিলেন।

যুব সম্প্রদায় থেকে শুরু করে বয়স্ক মানুষ, ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত।উল্লেখ্য বেশিরভাগই ছিল ইয়ং জেনারেশন। ১৮ থেকে ৩০ বয়সী যুবক যুবতীরাই বেশি অংশ নিয়েছিল এই মিছিলে।

লোকশিল্পী থেকে শুরু করে বহু সাধারণ মানুষ এই মিছিলে অংশ নেয়।সাধারণ মানুষের উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো। মহিলাদের অংশগ্রহণ ছিল খুব বেশি।সাধারণ মানুষের কাছ থেকে প্রচুর ভালোবাসা পেয়েছেন বামফ্রন্ট নেতারা।

জনসাধারন সাদরে অভ্যর্থনা জানিয়েছে তাদের।বয়স্ক মানুষেরা আশীর্বাদ দিতেও কার্পণ্য করেননি। সাদরে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। গতবার বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী ছিলেন চলচিত্র জগতের অভিনেত্রী,সুচিত্রা কন্যা মুনমুন সেন।

অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েও কোনোটাই রাখেননি তিনি তাই এইবারে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে আসানসোলের প্রার্থী হিসেবে।সেখানেও তিনি তাঁর প্রয়াত মায়ের আত্মার শান্তি কামনার জন্য ভোট চাইছেন। আর তৃণমূলের তরফ থেকে বাঁকুড়ার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছে হেভিওয়েট প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে।

তৃণমূল কংগ্রেসের তরফ থেকে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মত হেভিওয়েট প্রার্থী থাকা সত্তেও আজকের এই সাফল্যের মিছিল রাজ্য সরকারকে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের এক অংশ। এবার এটাই দেখার বর্তমানে নারদ কাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত তৃণমূল কংগ্রেসের হেভিওয়েট প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায় জয়ী হয় না জনসাধারণের এই মিছিল জয়ী হয়।তার উত্তরের জন্য অপেক্ষা ২৩শে মে পর্যন্ত।