জুনিয়র ডাক্তার ও নার্সদের ধর্মঘট। গত ৩৬ ঘন্টায় মৃত ১৪।

ঝাড়খন্ডের রাজেন্দ্র ইন্সটিটিউট অফ সায়েন্স হাসপাতালে নার্স ও জুনিয়র ডাক্তারদের লাগাতার ধর্মঘটের ফলে প্রাণ গেল প্রায় ১৪জন রোগীর।

গত শুক্রবার হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে ভর্তি হন এক মহিলা। হাসপাতালেই দায়িত্বপ্রাপ্ত এক নার্স তাকে ইঞ্জেকশন দেবার কিছুক্ষন পরেই মৃত্যু হয় ওই মহিলার। ফলে মহিলার সঙ্গে আসা লোকজন উক্ত নার্সকে শারীরিক নিগ্রহ করে বলে অভিযোগ।

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ও দোষীদের শাস্তির দাবীতে শনিবার সকাল থেকে ধর্মঘট শুরু করেন RIMS এর নার্স ও জুনিয়র ডাক্তাররা। তারা এদিন নতুন করে কোনো রোগী ভর্তি নেননি। ও যারা আগে থেকেই ভর্তি ছিলেন তাদের ও পর্যাপ্ত ওষুধ ও চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হয়নি বলেই জানা গেছে। ফলে উপযুক্ত চিকিৎসার অভাবেই প্রাণ যায় ১৪ জনের। হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা না করে ফিরিয়ে দেওয়া হয় প্রায় ২০০০ রোগীকে। আবার যারা ভর্তি ছিলেন তাদের আত্মীয়রাও বাধ্য হয়ে তাদের অন্যত্র সরিয়ে নিতে থাকেন।

অবস্থা এতটাই গুরুতর হয়ে ওঠে যে ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস, স্বাস্থ্যমন্ত্রী রামচন্দ্র চন্দ্রবংশীকে দ্রুত হস্তক্ষেপের নির্দেশ দেন। মুখ্যমন্ত্রী জানান প্রতিবাদের অধিকার সবার আছে। কিন্তু তার জন্য কোনোরকম বিশৃঙ্খলা বরদাস্ত করা হবেনা।

শেষপর্যন্ত রবিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী রামচন্দ্র চন্দ্রবংশী ও মুখ্য সম্পাদক সুধীর ত্রিপাঠী হাসপাতালে যান ও আলোচনার ভিত্তিতে ধর্মঘট উঠে যায়।