ভোট লুঠ রোখার দায়িত্ব B.P.M.O. র কাঁধে

রাজ্যের পালাবদল হবার পর থেকেই প্রায় সব নির্বাচনেই বামেরা ভোট লুঠের অভিযোগ তুলেছে শাসক দলের দিকে।২০১৬ এ কেন্দ্রীয় বাহিনী এসে ভোট পরিচালনা করার পর ও ভোট নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট হতে পারিনি বাম শিবির।

 


এবং গত পঞ্চায়েত ভোটে অস্বাভাবিক এক নির্বাচন দেখার পর তারা আর কাউকেই ভরসা করতে পারছে না।তাই আলিমুদ্দিন সূত্রে খবর ভোট লুঠ আটকাতে তারা নয়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে।বামপন্থী নেতাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী এই দায়িত্ব পালন করবে দলের এলাকার সমর্থক,দরদী এবং শুভ বুদ্ধিসম্পন্ন সাধারণ মানুষ।

অলিমুদ্দিনের ভাবনা অনুযায়ী এই বিষয় নেতৃত্ব দেবেন B.P.M.O. বাম সমর্থিত বিভিন্ন গণসংগঠন গুলি নিয়ে তৈরি B.P.M.O. (বেঙ্গল প্লাটফর্ম অফ মাস অর্গানাইজেশন) বাম শিবিরের এই পদক্ষেপ কি সত্যিই ফেরাতে পারবে গণতন্ত্র?নিজের ভোট প্রয়োগ করতে পারবে মানুষ?এবার সেটাই দেখার।

 

পড়ুনঃ মৌলবাদীর হাতে প্রকাশ্যে খুন, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক।