প্রবেশিকার দাবীতে ফের উত্তাল যাদবপুর।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ আবার একবার পড়ুয়াদের বিক্ষোভ ও ঘেরাও এর সাক্ষী থাকলো যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। প্রবেশিকা পরীক্ষা সংক্রান্ত নতুন নিয়মই হল এই বিক্ষোভের প্রধান কারণ।

মোটামুটি সকলেই জানেন যাদবপুরের ভর্তিপ্রক্রিয়া সংঘটিত হয় প্রবেশিকা পরীক্ষার মাধ্যমে। গত সপ্তাহে তা নিশ্চিত ও করা হয়। কিন্তু গত ৪ই জুন আগের সিদ্ধান্ত থেকে ১৮০ডিগ্রি ঘুরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, কলা বিভাগের ছটি বিষয় অর্থাৎ বাংলা, ইংরাজি, দর্শন, ইতিহাস, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও তুলনামূলক সাহিত্যে প্রবেশিকা পরীক্ষা নেওয়া হবেনা। ভর্তি হবে উচ্চমাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে তৈরী মেধাতালিকা অনুযায়ী। আর এতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন যাদবপুরের বর্তমান পড়ুয়ারা। প্রবেশিকা পরীক্ষা ফের চালুর দাবীতে ঘেরাও শুরু হয়। বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকেই চলছে লাগাতার ঘেরাও।
পড়ুয়াদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের চাপের কাছেই নতিস্বীকার করছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ ধরণের পদক্ষেপে যাদবপুরের মানের অবনতি ঘটবে বলেই তাদের দাবী। এ প্রসঙ্গে পড়ুয়ারা পাশে পেয়েছে শিক্ষক সংগঠন 'জুটা' কেও।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস অবশ্য এই সিদ্ধান্তের দায় চাপিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসমিতির ওপর। জানিয়েছেন তিনি এ বিষয় কিছুই করতে পারেননা। পড়ুয়াদের এই আচরণের কোনো যুক্তিসংগত কারণও খুঁজে পাচ্ছেননা। তবে কোনো অবস্থায়ই ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢুকবেনা বলেই জানান তিনি। আগের ভুলের পুনরাবৃত্তি করতে রাজী নন বর্তমান উপাচার্য।

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন সব জায়গায় ভর্তি প্রক্রিয়া এক হওয়াটাই উচিত। তবে এ বিষয় চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষই। এখন এটাই দেখার এই আন্দোলনের ফলাফল কী হয়।