জয়ার পর TMCP র পরবর্তী সভাপতি কি ঋতব্রত? বাড়ল জল্পনা।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ ২১ শে জুলাই সভার আগেই সরানো হল টিএসসিপির রাজ্য সভানেত্রী জয়া দত্তকে ৷ লাগামহীন তোলাবাজী আটকাতেই সরানো হয় টিএমসিপি-র সর্বোচ্চ নেত্রী কে।

একসময় তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতির পদ থেকে অশোক রুদ্রকে সরিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের ছাত্র সংগঠনের দায়িত্ব তুলে দিয়েছিলেন জয়া দত্তের কাঁধে। আর সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাধ্য হয়েই কেড়ে নিলেন জয়ার পদ।

এই মুহূর্তে দলের দায়িত্বে কেউ নেই। তবে শোনা যাচ্ছে আগামী ১০ দিনের মধ্যে দলের নতুন সভাপতি মনোনয়ন করবেন মমতা। টিএমসিপি-র সভাপতি হিসেবে একাধিক নাম ভাসলেও দুজনের নাম সামনে আসছিল বার বার। প্রথম নাম উঠে আসছে বাঁকুড়া জেলার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভানেত্রী চুমকি বন্দ্যোপাধ্যায়ের। দ্বিতীয় প্রস্তাব উঠে আসছে উত্তর ২৪পরগনার জেলার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি পারমিতা সেনের নাম।

তবে আজ বহিষ্কৃত বাম সর্বভারতীয় ছাত্র নেতা কে নতুন মর্যাদায় ভূষিত করেছেন স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আজ মুখ্যমন্ত্রী নিজেই বহিষ্কৃত সিপিআইএম সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় কে আদিবাসী উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত করেন । আর এতেই বাড়ছে জল্পনা।

 

পড়ুনঃ বহিষ্কৃত নেতা থেকে অভিনেতা, "চাদর প্রেমী" ঋতব্রত। ছবির শুটিং হুগলীতে।


ঋতব্রত SFI এর সর্বভারতীয় সম্পাদক ছিলেন, যার দরুন দেশের রাজনীতির সঙ্গে সম্যক ধারণা রয়েছে তার। এছাড়া ছাত্র রাজনীতি করার অভিজ্ঞতা থাকার জন্য নিজের দলের ছাত্র সংগঠন কে নতুন ভাবে তৈরি করতে ঋতব্রতকে ব্যবহার করতে পারে তৃণমূল। সেক্ষেত্রে আগামী দিনে ঋতব্রতকে টিএমসিপি-র সভাপতি হিসেবে তুলে আনতেই পারে তৃণমূল। রেজ্জাক মোল্লা ও সিপিএম থেকে বহিষ্কারের পরে এখন বর্তমানে তৃণমূলের মন্ত্রী। তাই ঋতব্রতর ছাত্র নেতা হবার ক্ষেত্রে তৃণমূলে কোন ছুতমার্গ নেই বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তবে ছাত্র রাজনীতি করতে গিয়ে ঋতব্রতর বিরুদ্ধে অনেক রকমের অভিযোগ ওঠে। SFI ছাত্র নেতা সুদীপ্ত গুপ্তের মৃত্যুর পর, দিল্লিতে ঋতব্রতর ভুল পদক্ষেপে তৃণমূলের সন্ত্রাসে সিপিএমের ১৫০০ পার্টি অফিস আক্রান্ত হয়। সেই সময় দলের অব্যন্তরেও কথা উঠেছিল ঋতব্রতর বিরুদ্ধে। এছাড়া কিছুদিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় এবং একটি অজানা নামের মেয়ের ছবি ভাইরাল হয়। পরে সেই নম্রতা দত্ত নামে এই যুবতীর ঋতব্রতর বিরুদ্ধে বিয়ের পতিস্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ জানান। আর তার পরই সিপিএম থেকে ছেঁটে ফেলা হয় ঋতব্রতকে।

তবে সব টাই সম্ভবনা। ১০ দিন পরে না হয়ে আগামী ২১ শে জুলাই ও মঞ্চ থেকে হতে পারে নতুন টিএমসিপি-র সভাপতি মনোনয়ন। কে হবেন আগামী দিনের ছাত্র নেতা ঠিক করবেন মমতা। সেখানে ঋতব্রতর নাম উঠে আসবে কিনা সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

 

 

পড়ুনঃ গায়ে পারফিউমের গন্ধ মেখেই মমতার নির্দেশে আদিবাসীদের নেতা হলেন ঋতব্রত।