বিভীষিকার উড়াল পুল। আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন চন্দননগরের মানুষ।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ ২০১৬ সালে চালু হওয়া চন্দননগরের আধুনিক উড়াল পুল এখন সাধারণ মানুষের কাছে বিভীষিকা। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ সন্ধে নামার পরেই উড়াল পুলে আশেপাশে শুরু হয় মদ ও জুয়ার আড্ডা।

কিছুদিন আগে চুঁচুড়া খাদিনামোড়ে তপন বাগ নামে এক ট্রাক চালক কলকাতার উদ্দেশ্যে উড়ালপুলের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন কিন্তু উড়ালপুলের ওপরে ওঠার পরেই ছয় যুবক ট্রাকটির পিছু নেয়, এরপর ট্রাকচালকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে গাড়ী থামানোর কথা বললে তপন বাবু গাড়ির গতি বাড়ান ফলে ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারায় ,অল্পের জন্য রক্ষা পান তপন বাবু কিন্তু ততক্ষণে যুবকেরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এই মাসের শুরুর দিকে হরিদ্রাডাঙার একটি বরযাত্রী গাড়ীর থেকেও ছিনতাইএর চেষ্টা করা হয় ঐ উড়ালপুলেই।

কোটি কোটি টাকায় তৈরী উড়ালপুল দিন দিন হয়ে উঠছে ছিনতাইবাজদের আস্তানা। অথচ স্থানীয় পৌরণীগম থেকে এবিষয়ে কোনো সঠিক ভাবনা চিন্তা লক্ষ করা যাচ্ছে না। যে উদ্দেশ্যে উড়ালপুলটি করা হয়,চন্দননগর স্টেশন রোডের গাড়ির জ্যাম কমানো তা একেবারেই সফল হয় নি। তবে সাধারণ মানুষের দাবি, এই সময় প্রশাসনের কিছু ট্রাফিক রুল করে উড়ালপুলে বেশি পরিমাণ গাড়ি চলাচলের ব্যাবস্থা করা উচিত এবং যাত্রীদের সুরক্ষার জন্যও ব্যাবস্থা করা উচিত প্রশাসনের।