"মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণা" না লেখায়, সরকারী অনুষ্ঠান থেকে বাদ গেলেন বামকাউন্সিলররা।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ সরকারী অনুষ্ঠান থেকে বাদ পড়লেন বামেরা। কারণ মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় কাজ করতে নারাজ তারা। সুত্রের সবর এমনি, যে কোনো সরকারী অনুষ্ঠান কলকাতা পুরসভার বাম কাউন্সিলাররা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় করতে রাজী হননি। তাই তাদের বাদ রেখেই সরকারী অনুষ্ঠানটি করা সবে বলে জানা গেছে।

কলকাতা পুরসভা সুত্রে জানা গেছে ১৪ই আগস্ট কন্যাশ্রী দিবস উপলক্ষে রাজ্য সরকারের নির্দেশে একটি কর্মসূচী নেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে কলকাতা পুরসভার সবকটি ওয়ার্ডেই আয়োজন করতে হবে নাচ-গান-আবৃত্তি প্রতিযোগীতা। যাতে অংশগ্রহণ করবে ওয়ার্ডের সব কন্যাশ্রীরাই। কন্যাশ্রী প্রকল্প নিয়ে জনসচেতনতামূলক শিবিরও করতে বলা হয়। ১লা আগস্ট থেকে ১০ই আগস্ট অবধি এই প্রতিযোগীতা চলবে। যার পুরস্কার বিতরণী হবার কথা ১৪ই আগস্ট অর্থাৎ কন্যাশ্রী দিবসের দিন। এই উদ্যোগকে প্রথমে স্বাগত জানিয়েছিলেন পুরসভার ১০নং বরোর বাম কাউন্সিলাররা। কিন্তু যখন তাঁরা জানতে পারেন যে অনুষ্ঠানে লিখতে হবে 'মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায়', তখনই বেঁকে বসেন তাঁরা।

ওই বরোর চেয়ারম্যান তপন দাশগুপ্ত জানিয়েছেন সরকারী নিয়মের বাইরে গেলে কোনো বাম কাউন্সিলারকেই সরকারী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করতে দেওয়া হবেনা। তিনি বলেছেন এর আগেও বাম কাউন্সিলাররা সরকারী অনুষ্ঠান করছেন, কিন্তু তাতে যথাযথ ভাবে মুখ্যমন্ত্রীকে সম্মান প্রদর্শন করা হয়নি। তাই এবারে তাদের সুযোগই দেওয়া হবেনা।

উল্টোদিকে আরএসপির কাউন্সিলার দেবাশীষ মুখোপাধ্যায় ক্ষোভ প্রকাশ করে, একে চেয়ারম্যানের স্বৈরাচারী সিদ্ধান্ত অ্যাখা দিয়েছেন। সিপিআইএমের কাউন্সিলার মৃত্যুঞ্জয় চক্রবর্তী জানিয়েছেন "বামপন্থীরা ব্যক্তিগত কারও অনুপ্রেরণায় কোনও সরকারী অনুষ্ঠানে বিশ্বাস করেনা। সরকারী অনুষ্ঠান সবাইকে নিয়ে যৌথভাবে হয়। আমরা বাম কাউন্সিলাররা সরকারী অনুষ্ঠান করতে চাই।" যদিও এরপর পুরসভার পুরসভার তরফে আর কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি।