গতকালের হীরালাল পাল কলেজের ঘটনায় পথে নামলো এসএফআই।

১০ দিক ২৪ ব্যুরো :উত্তরপাড়া থানার কোন্নগর  হীরালাল পাল কলেজে টিএমসিপির দাদাগিরির বিরুধ্যে ফের পথে এসএফআই।সিপিএম  লোকসভায় এ রাজ্যে আসন না পেলে তাদের ছাত্র সংগঠন পথে আছে। শাসকের  দাদাগিরি কে চ্যালেঞ্জ করে লড়াই করছে এসএফআই।হীরালাল পাল কলেজে বিক্ষোভ করলো এসএফআই।বিক্ষোভের পর মিছিল ও শেষ এ উত্তরপাড়া থানায় বিক্ষোভ ও  থানার সামনে অবরোধ  এ সামিল হয় এসএফআই।

তৃণমূলের  ছাত্র ইউনিয়নের ছেলেদের‘ দাদাগিরি।মার খেলেন অধ্যাপক। মারলেন  টিএমসিপি ছেলে।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জিন্দাবাদ’ না বলায় ছাত্রছাত্রীদের আটকে রাখার অভিযোগ উঠল তৃণমূল ছাত্রপরিষদের বিরুদ্ধে। বাধা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন অধ্যাপকও। গলা ধাক্কা দিয়ে পেটানো হল তাঁকে। ঘটনাস্থল হুগলির কোন্নগরের নবগ্রাম হীরালাল পাল কলেজ।  ওই আক্রান্ত অধ্যাপকের নাম সুব্রত চট্টোপাধ্যায়।

কোন্নগর নবগ্রাম হীরালাল পাল কলেজে এমএ ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে ডিগ্রি কোর্সের ছাত্র-ছাত্রীদের অশান্তি শুরু হয় এ দিন দুপুর থেকে। অভিযোগ, মাস্টার ডিগ্রির ছাত্রছাত্রীদের টিএমসিপি-র হয়ে স্লোগান দিতে বলে ইউনিয়নের নেতারা। অভিযোগ, বলা হয় টিএমসিপি জিন্দাবাদ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জিন্দাবাদ বলতে হবে। বলতে অস্বীকার করায় ইউনিয়ন রুমে তালা বন্ধ করে রাখার অভিযোগ ওঠে শাসক দলের ছাত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে।

 খবর, গতকাল  হীরালাল পাল কলেজের এমএ ফাইনাল পরীক্ষা  শেষ হওয়ায় ছাত্রীরা বেঞ্চে উঠে সেলফি তুলছিল। এটা জানতে পেরে টিএমসিপি সমর্থকরা তাদের বেঞ্চ থেকে নেমে যেতে বলে। এই নিয়ে বচসা শুরু হয় দু’পক্ষের মধ্যে।

 গতকাল বিকেল পাঁচটা নাগাদ বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ডঃ সুব্রত চট্টোপাধ্যায় ছাত্রীদের নিয়ে কলেজ থেকে বেরোনোর চেষ্টা করেন। কলেজ গেটে তাকে বেধড়ক মারধর করা হয়। ছাত্রদের কিল-ঘুঁষি খেয়ে মাটিতে বসে পড়েন অধ্যাপক। টিএমসিপি-র বিরুদ্ধে উত্তরপাড়া থানায় অভিযোগ করেছেন ওই অধ্যাপক। ওই অধ্যাপক তৃণমূল ছাত্র বিরুধ্যে অভিযোগ করেন।তৃণমূলের দাবি“এবিভিপি কলেজে ইউনিট খুলতে চাইছে। তা নিয়ে ছাত্রীদের নিজেদের মধ্যে একটা বচসা হয়। সুব্রত স্যার এমএ ছাত্রীদের পক্ষ নেন। টিএমসিপির ছাত্রীদেরও মারধর করা হয়েছে। এটা দেখে ছাত্ররা হয়তো ধাক্কা দিয়েছে স্যারকে। মারধর করা হয় নি।" ব্যাপারে আজ রাস্তায় প্রতিবাদ করলো এসএফআই।তারা আজ হীরালাল পাল কলেজে বিক্ষোভ করে ও মিছিলের পর উত্তরপাড়া থানায় বিক্ষোভ করে।