Homeকিছু কথাধর্ম ও ফ্যাসিবাদ। ১০দিক২৪ এর বিশেষ প্রতিবেদন।

ধর্ম ও ফ্যাসিবাদ। ১০দিক২৪ এর বিশেষ প্রতিবেদন।

১০দিক২৪, লিখেছেন, প্রখ্যাত আঁতেল নিগান্ত নটপুত্রঃ রোমান ক্যাথলিকদের রক্তক্ষয়ী অধ্যায় আছে। পঞ্চদশ খৃষ্টাব্দ ১৪০০-১৫০০ মাঝামাঝি। “পেগান” বা পূর্বদেশীয় অ-খৃষ্টীয় চর্চা বা নারীবাদী তান্ত্রিক বিশ্বাসের নামে, বহু নিরীহ মানুষকে জ্যান্ত জ্বালানো হয়। বিজ্ঞান ও শিক্ষার অগ্রগতি চার্চ মেনে নিতে পারেনি। তাই জিওদার্নো ব্রুনো থেকে কোপারনিকাসের ওপর ধর্মীয় খাঁড়া নেমে এসেছে। আমরা হিটলারের ইহুদী হত্যার কথা জানি। তবে এটাও কথিত আছে ইউরোপের মহামারী প্লেগের বাহকের নাম করে শত শত ইহুদীদের হত্যা করা হয়। আমরা যে পশ্চিমী সভ্যতাকে আধুনিক মনে করি সেটা এই সময় আরো কদর্য ছিলো। ধিরে ধিরে শিক্ষার উন্মেষ কুসংস্কার থেকে মানুষকে বের করে নিয়ে এসেছে।




নবজাগরণের কালে সাম্রাজ্য বিস্তারের লোভ মানুষকে বিশ্ব পরিভ্রমণে পাঠায়। নতুন দেশ আবিষ্কারের লোভে একের পর এক দেশ দখল করা হয়। আমরা কলম্বাসের আমেরিকা যাত্রা জানি। ইনকা মায়া রেড ইন্ডিয়ানদের হত্যার ইতিহাস জানিনা। প্লেগ ও টাইফয়েড চিকেন পক্সে সংক্রমিত চাদর গিফট করা হত মায়া ইনকা দের। এইভাবে লাতিন আমেরিকায় স্প্যানিশদের আধিপত্য। মার্কিন গৃহযুদ্ধের পর সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী অধ্যায় লিখেছিলো শ্বেতাঙ্গ অধিবাসীরা। ট্রান্স আমেরিকান রেলরোড তৈরিতে বাধা হবার জন্য লাখে লাখে রেড ইন্ডিয়ান হত্যা করা হয়। হয়ত ক্রিসমাসের রাত সেদিনও ছিলো। লাখো লাখো যীশুখ্রিস্ট সেদিন ক্রুশে বিঁধেছিলো। তারা অত্যাচারীদের জন্য ক্ষমা চেয়েছিলো কিনা জানিনা। তবে সেই শীতের রাতের ইতিহাস একজন হিটলারকে মনে রাখে। কিন্তু ইতিহাস লক্ষ লক্ষ হিটলারের আলেখ্যে ভরা। ভলগা তীরের সেপাইয়ের টুপির লাল তারা আর জ্বলজ্বলে চোখ তা জানে।

ভারতবর্ষে ধর্মীয় মৌলবাদের যে চরিত্র, মধ্যপ্রাচ্যে যে চরিত্র, মায়ানমারে যা চরিত্র, বাংলাদেশে যা চরিত্র। তা কার্যত এক। তাইতো বোকো হারাম তৈরি হয় শিক্ষার বিরুদ্ধে বিষোদ্গার করে। সংগঠিত ধর্ম যে অমানবিক ক্রুর ঘাতক তা বারেবারে প্রমাণিত। ব্যতিক্রম মানুষের মানবিকতার প্রকাশ। কিছু লোক ভুলে যায় কেন চার্বাক, বৌদ্ধ, ন্যায় দর্শন এদেশেই তৈরি। বৌদ্ধদর্শন বৌদ্ধধর্ম হল সেই ব্যবসার ঐকান্তিক নিয়মে যখন হীনযান বৌদ্ধধর্ম মহাযান বৌদ্ধধর্মে ভাগ হয়। মাতৃ-আরাধনা তন্ত্র বলি এসব তো ঈশ্বরহীন বৌদ্ধধর্মে যুক্ত হয় তারপরেই। মানুষের বিশ্বাস তার যায়গায় কিন্তু সংগঠিত ধর্ম অর্থনৈতিক কারণ ও ধাঁচে গড়া। হুগলী জেলায় আর এস এসের গুপ্ত শাখা সংগঠনের পরোক্ষে অর্থপ্রদানে গড়ে ওঠা কয়েকটি মন্দির ই তার প্রমাণ।




রোম সহ সমগ্র ইতালি, নবজাগরণের কাল ও বনিকশ্রেণীর উদ্ভব বিশ্ববাণিজ্য শেয়ার মার্কেট ও ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি। উপনিবেশিক মানসিকতা জাত্যাভিমান এই সবই জার্মানি ও ইতালির ফ্যাঁসিস্ত কাঠামোর জন্মের কারণ। পঞ্চদশ শতকের ইয়োরোপীয় নবজাগরণ বুলগেরিয়া রোমানিয়ার রাজাদের ক্ষমতার অপব্যবহার নিয়ে মানুষের ক্ষোভ। হবস লক বেন্থাম রুশোর দৃষ্টিভঙ্গি প্রাচীন প্রজাতন্ত্র ও উদারনীতি এবং গণতান্ত্রিক সমাজবাদ Democratic Socialism। শিল্প-বিপ্লব ও বৃহৎ পুঁজি বনিক শ্রেণীর পুঁজির খাটা বৃহৎ শিল্পে। জমিহারা কৃষকের শ্রমজীবী বনে যাওয়া শ্রমজীবী মানুষের সংগ্রাম ও মার্কসের দৃষ্টিতে সমাজতন্ত্র। ফরাসী বিপ্লব জার্মানির জাতীয়তাবাদ বিশ্বযুদ্ধ সবই এক ইতিহাসের পর্যায় মাত্র। শুধু ফ্যাসিবাদের উত্থানের পট আলাদা। ক্যাথলিকদের বর্বর ঘৃণা। যুক্তিবাদের বিরোধিতা ধর্মীয় কুসংস্কারের গোঁড়ামি রোমানিয়া বুলগেরিয়া ফ্রান্সে রাজতন্ত্রের প্রবল অত্যাচার বর্ণভিত্তিক ও জাতিভেদের দৃষ্টি পর্যালোচনা করলেই বোঝা যাবে ফ্যাসিবাদের ভিত্তি কোথায়। রোমের রাজা কনষ্টানটাইনের পরবর্তীকালে নাইট নামক সম্ভ্রান্ত সামন্ত-প্রভুদের খৃষ্টধর্মে অনুরাগ। ক্রুসেড পরবর্তীকালে অ খৃষ্টীয় মানুষদের প্রতি তীব্র ঘৃণা। প্রবল ধর্মীয় উন্মাদ পরে জার্মান ফ্যাসিবাদের ভীত তৈরি করে।

এস এস নেতা রুডল্ফ হেসের ফ্যাসিস্তদের ইথিওপিয়া জেরুজালেম যাত্রা। বিশুদ্ধ আর্যত্বের ধারনা। হোলি ক্রেইলের জার্মান গুজব। হিটলারের দেবত্ব প্রমাণে গোয়েবলসীয় মিথ্যাচার সেটা প্রমান করে। গোয়েবলস নাকি এমনটাও প্রচার করতেন হিটলার নাকি খৃষ্ট ধর্মের প্রধান পোপের সমান।




FOLLOW US ON:
Rate This Article:
NO COMMENTS

Sorry, the comment form is closed at this time.