Homeরাজ্য“এ লড়াই শুধু কারখানা রক্ষার লড়াই না,এ লড়াই আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার লড়াই।”

“এ লড়াই শুধু কারখানা রক্ষার লড়াই না,এ লড়াই আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার লড়াই।”


নিরুপম সেনের সংক্ষিপ্ত জীবনী: ১৯৪৬ সালের ৮ই অক্টোবর কমরেড নিরুপম সেনের জন্ম। তাঁর শৈশব কেটেছে বর্ধমান জেলার গোবিন্দপুর অঞ্চলে। সেখানকার রায়পুর হাইস্কুলে তাঁর পিতা ভুজঙ্গভূষণ সেন শিক্ষকতা করতেন। ঐ স্কুলেই নিরুপম সেন পড়াশুনা করেন এবং কৃতিত্বের সঙ্গে স্কুল ফাইনাল পাস করেন। এরপরে ১৯৬১ সালে তিনি বর্ধমান রাজ কলেজে ভর্তি হন বিজ্ঞান বিভাগে। সেই সময়েই তিনি ছাত্র আন্দোলনে যুক্ত হন এবং দ্রুত জনপ্রিয় ছাত্র নেতা হয়ে ওঠেন। তিনি অত্যন্ত সুবক্তা ছিলেন এবং মানুষকে আকর্ষণ করার ক্ষমতা রাখতেন। ছাত্রাবস্থাতেই নিরুপম সেন কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যপদ অর্জন করেন। তাঁর পার্টি সদস্যপদের প্রস্তাব করেছিলেন সি পি আই (এম) নেতা মদন ঘোষ এবং সমর্থন করেছিলেন সুশীল ভট্টাচার্য। ১৯৬৬ সালে নিরুপম সেন বর্ধমান জেলায় ছাত্র ফেডারেশনের সম্পাদক নির্বাচিত হন। ইতিমধ্যে তিনি বর্ধমান রাজ কলেজ থেকে বিজ্ঞানে স্নাতক হয়েছেন এবং তারপরে কলা বিভাগেও স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

শিক্ষান্তে তিনি প্রথম জীবনে কিছুদিন শিক্ষকতার কাজ করেছিলেন। প্রথমে বর্ধমানের সি এম এস হাইস্কুলের প্রাতঃবিভাগে এবং তারপরে তিকরহাট হাইমাদ্রাসায় কিছুদিন শিক্ষকতা করেন। এরপরে ১৯৬৮সালে তিনি পার্টির সর্বক্ষণের কর্মী হন। ১৯৬৮সালের এপ্রিলে বর্ধমানে অনুষ্ঠিত হয় মতাদর্শগত প্রশ্নে সি পি আই (এম)-র কেন্দ্রীয় প্লেনাম। প্লেনামে অংশ নিয়ে যেখানে পলিট ব্যুরো সদস্যরা রাত্রিবাস করতেন সেই বর্ধমান ভবনে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন নিরুপম সেন, ডাইনিং রুমে টেবিলের ওপর চাদর পেতেই শুতেন পার্টির তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক পি সুন্দরাইয়া ও অন্যান্য পলিট ব্যুরো সদস্যরা। বাইরে বারান্দায় অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে শুতেন নিরুপম সেন।



১৯৬৮ সালেই নাদনঘাটে বর্ধমান জেলার দশম সম্মেলনে নিরুপম সেন সি পি আই (এম)-র জেলা কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। পরে ১৯৮৯ সালে কমরেড রবীন সেন বর্ধমান জেলা কমিটি সম্পাদক পদ থেকে পার্টির রাজ্য সম্পাদকমন্ডলীতে এলে বর্ধমান জেলা সম্পাদকের দায়িত্ব পান নিরুপম সেন। সেই সময় থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্ব পালন করেছেন। ৬ এবং ৭ এর দশকের অবিভক্ত বর্ধমান জেলায় এক অংশে তীব্র কৃষক আন্দোলন এবং অন্য অংশে তীব্র শ্রমিক আন্দোলন সংগঠিত হচ্ছিলো। কমরেড নিরুপম সেন লালঝান্ডার এই তীব্র আন্দোলনের স্রোতে মিশে গিয়েছিলেন। এর জন্য অন্যান্য সি পি আই (এম) নেতাদের সঙ্গে তাঁকেও মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছিলো।

১৯৭০ সালের ১৬ মার্চ রাতে দ্বিতীয় যুক্তফ্রন্ট সরকারকে ফেলে দেওয়ার পরদিন যুক্তফ্রন্টের ডাকে সাধারণ ধর্মঘট ডাকা হয়েছিলো। ধর্মঘটের দিন বর্ধমানে তেলমোড়িয়া রোড দিয়ে ধর্মঘটের সমর্থনে একটি মিছিলে সাঁইবাড়ির ছেলেরা বোমা নিয়ে আক্রমণ করেছিল, যাতে আদিবাসীসহ কয়েকজন আহত হন। এরপরে আদিবাসীরা চড়াও হয়েছিলেন সাঁইবাড়িতে। সেদিন ঐ মিছিলে নিরুপম সেন ছিলেন না, তিনি ছিলেন কার্জন গেটের সামনে আরেকটি মিছিলে। কিন্তু কংগ্রেস নেতারা নিরুপম সেনসহ বহু সি পি আই (এম) নেতাকে সাঁইবাড়িতে আক্রমণের মিথ্যা অভিযোগে জড়িয়েছিলো। যদিও মামলায় নিরুপম সেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আদৌ টেঁকেনি। কিন্তু আধা-ফ্যাসিবাদী সন্ত্রাসের সময় এরকম নানা আক্রমণের মুখে দাঁড়িয়ে নিরুপম সেনকে কাজ করতে হয়েছিলো। বর্ধমানের অনেক সি পি আই (এম) নেতা তখন আত্মগোপনে থাকতে বাধ্য হয়েছিলেন। নিরুপম সেনও বর্ধমান শহরেই আত্মগোপন করে মধ্যবিত্ত কর্মচারীদের সাহায্য নিয়ে পার্টি সংগঠনের কাজ চালিয়ে গিয়েছিলেন। সেই সময় তাঁর ছদ্মনাম ছিলো ‘বিজন’। এর আগে ছাত্র আন্দোলনের সময়েও তিনি ‘হরিদাস’ ছদ্মনাম নিয়ে কাজ করেছিলেন। ১৯৭৪ সালে রেল ধর্মঘটের সময় অনেকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছিলেন। আত্মগোপনে থাকা সেই সব কর্মী ও নেতৃবৃন্দের বর্ধমানে আশ্রয়ের ব্যবস্থা ও খাবার সরবরাহের কাজেও নিরুপম সেন সক্রিয় ছিলেন।



১৯৭২সালে প্রহসনের নির্বাচনে সি পি আই (এম) বর্ধমান শহর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয়ী হতে পারেনি। তবে ১৯৭৭সালে এই কেন্দ্রে সি পি আই (এম) জয়ী হয়। সি পি আই (এম)-র শ্রদ্ধেয় নেতা প্রয়াত কমরেড বিনয়কৃষ্ণ চৌধুরী কংগ্রেসের প্রদীপ ভট্টচার্যকে হারিয়ে সেবার জিতেছিলেন। ১৯৭৭ সালে বামফ্রন্ট সরকার তৈরি হওয়ার পরে বর্ধমানে পার্টির পুনর্গঠনে শ্রমিক আন্দোলন, সাংস্কৃতিক আন্দোলন, স্বাস্থ্য শিক্ষা ইত্যাদির আন্দোলনে মধ্যবিত্ত অংশের মানুষকে সংগঠিত করতে নিরুপম সেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই ধরণের কাজের ফলে বর্ধমান শহরে পার্টির প্রভাব দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছিলো। ১৯৮২ সালের নির্বাচনে এরফলে সি পি আই (এম) এই কেন্দ্রে জয়ী হয়। পরেরবার অর্থাৎ ১৯৮৭ সালে বিধানসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে সি পি আই (এম) প্রার্থী হিসাবে আরও বড় ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলেন নিরুপম সেন। সেই তাঁর প্রথমবার বিধানসভায় প্রবেশ। কিন্তু তারপরে তিনি আবার সংগঠনের দায়িত্বে নিযুক্ত হন।

১৯৮৫ সালেই নিরুপম সেন পার্টির রাজ্য কমিটির সদস্য হন। ১৯৯৫ সালে নিরুপম সেন সি পি আই (এম)-র রাজ্য সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন, জেলা থেকে রাজ্যে বর্ধিত দায়িত্ব নিয়ে আসেন। ১৯৯৮ সালে কলকাতায় সি পি আই (এম)-র ষোড়শ কংগ্রেসে তিনি পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের পার্টি কংগ্রেসে তিনি সি পি আই (এম)-র পলিট ব্যুরোর সদস্য নির্বাচিত হন।



২০০১ সালে নিরুপম সেন ফের বর্ধমান (দক্ষিণ) বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হন। এবার বামফ্রন্ট সরকারের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান তিনি। ২০০৬ সালেও তিনি ঐ কেন্দ্র থেকেই পুনর্নির্বাচিত হন। এবারও তিনি শিল্প ও বাণিজ্য দপ্তরের মন্ত্রী হন। পরবর্তীকালে তিনি এরসঙ্গে বিদ্যুৎমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছিলেন। বিধায়ক ও মন্ত্রী হিসাবে বিধানসভায় গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় সমৃদ্ধ ভাষণ দেওয়ার জন্য তিনি যেমন খ্যাতি অর্জন করেছিলেন, তেমনি বামফ্রন্ট সরকারের শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী হিসাবে তিনি রাজ্যের শিল্পায়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন। শিল্পায়নের এই দশবছরের পর্বে কৃষির সাফল্যের ভিতের ওপরে দাঁড়িয়ে কৃষক খেতমজুরদের স্বার্থরক্ষা করে রাজ্যে শিল্প এবং পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বিনিয়োগ টেনে আনায় তিনি দক্ষতার নিদর্শন রেখেছিলেন। তাঁর সময়েই পশ্চিমবঙ্গ দেশের মধ্যে শিল্প বিনিয়োগ টেনে আনায় সামনের সারিতে উঠে আসে।

কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে টানা আলোচনার মাধ্যমে তেল প্রাকৃতিক গ্যাস, ইস্পাত ইত্যাদি ক্ষেত্রে রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ আনাতেও তিনি সাফল্য দেখিয়েছিলেন। আবার টাটাদের সঙ্গে দরকষাকষি করে উত্তরাখন্ড থেকে তাদের অটোমোবাইল প্রকল্প এরাজ্যের সিঙ্গুরে টেনে আনাতেও তিনি সফল হয়েছিলেন। যদিও শেষপর্যন্ত সিঙ্গুরে আর তা রূপায়িত হয়নি। রাজ্যের বিদ্যুৎ পরিকাঠামো উন্নয়নে এবং বিদ্যুৎ পর্ষদকে অর্থনৈতিকভাবে সুদৃঢ় করাতেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য দেখিয়েছিলেন। বামফ্রন্ট সরকারের লক্ষ্য ও দৃষ্টিভঙ্গি ব্যাখ্যা করে তিনি বহু লেখা লিখেছিলেন যা দলিলের তুল্য মর্যাদা পেয়ে থাকে। তাঁর লেখা ‘রাজনৈতিক অর্থনীতি’, ‘বিকল্পের সন্ধানে’, ‘বর্তমান সময় ও আমাদের পার্টি’, ‘অর্থচিন্তা’, ‘ডাঙ্কেল প্রস্তাব ও ভারতের সার্বভৌমত্ব’, ‘চীনের ডায়েরি’, ‘সময়ের দর্পণে কমিউনিস্ট ইশতেহার’, ‘সাম্প্রদায়িকতার মোকাবিলায়’, ‘প্রসঙ্গ মতাদর্শ’, ‘কেন এই বিতর্ক’, ‘শ্বেত পারাবতের সন্ধানে’, ‘অশান্ত কাশ্মীর’ ইত্যাদি বই অত্যন্ত জনপ্রিয়।



২০১৩ সালে নিরুপম সেন মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে সুস্থ হলেও পক্ষাঘাতে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। ফলে সক্রিয় রাজনীতি থেকে অনেকটা দূরে সরে যান। ২০১৫ সালের পার্টি কংগ্রেসে তিনি সি পি আই (এম)-র কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্য হন। অসুস্থ অবস্থাতেও কমরেড নিরুপম সেন হুইল চেয়ারে বসে পার্টির অনেক সভা সম্মেলনে যোগ দিতেন। সাম্প্রতিক সময়ে রাজ্যের মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, জনস্বাস্থ্য ও জনশিক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে সদা উদ্বেগ প্রকাশ করতেন তিনি।

FOLLOW US ON:
Rate This Article:
NO COMMENTS

Sorry, the comment form is closed at this time.