Homeরাজ্যবাঁকুড়া শহরে পানীয় জলের তীব্র সংকট। শাসকের বিরুদ্ধে বাড়ছে ক্ষোভ।

বাঁকুড়া শহরে পানীয় জলের তীব্র সংকট। শাসকের বিরুদ্ধে বাড়ছে ক্ষোভ।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের আগে দাঁড়িয়ে এবারো সেই পানীয় জলই ভোটের ময়দানে সমস্যা হয় দাঁড়িয়েছে।গ্রীষ্মে বাঁকুড়া শহরের মানুষের জলকষ্ট দূর হয় না।সেই ধারাবাহিকতা মেনে এবারো বাঁকুড়া শহরে পানীয় জলের তীব্র সংকট শুরু হয়েছে।ভোট মানেই বাঁকুড়ায় পানীয় জল যে শাসক-বিরোধী দু’পক্ষের কাছে অন্যতম প্রধান ইস্যু হবে তা বলাবাহুল্য।বাঁকুড়া শহরে পানীয় জলের তীব্র সংকট শুরু হয়েছে। এমনটাই অভিযোগ শহরের ৪, ৯, ১৬, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের সঙ্গে বিরোধী রাজনৈতিক দল গুলিরও।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ,যে পরিমাণ জল সরবরাহ করা হচ্ছে তা একটি পরিবারের কাছে যথেষ্ট নয়। মাত্র দু’বালতি জলে একটি পরিবারে জলের চাহিদা কিভাবে মিটবে তা নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন তারা।শহরের বাসিন্দা অন্নপূর্ণা দে বলেন,মুখে বললে হবেনা। শহরের বিভিন্ন পাড়াতে ঘুরলেই জল ছবিটা স্পষ্ট হবে। এক বালতি জলের জন্য দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয় বলে তার অভিযোগ।দ্রুত জল সমস্যার সমাধান না হলে তারা পৌরসভায় গিয়ে তাদের দাবী জানাবেন বলেও জানান।২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে জেলা সফরে এসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাঁকুড়া পৌরসভাকে শহরে দ্রুত পানীয় জল সমস্যা সমাধানে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তারপর এক বছর ঘুরে আরও একটা নির্বাচনের সামনে পৌঁছেও সেই সমস্যার সমাধান হয়নি বলে অভিযোগ। আপৎকালীন পরিস্থিতিতে আর এনিয়েই শুরু হয়েছে শাসক-বিরোধী তর্জা।ট্যাঙ্কের মাধ্যমে পানীয় জলের সরবরাহের কাজ শুরু হলেও তা পর্যাপ্ত নয় বলেই জানিয়েছেন তারা।

পৌরসভার পক্ষ থেকে সমস্যার কথা স্বীকার করা হয়েছে ।পৌরপ্রধান মহা প্রসাদ সেনগুপ্ত বলেন,মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাঁকুড়া শহরের মানুষের জন্য ১১৬ কোটি টাকার একটি জলপ্রকল্প উপহার দিয়েছেন। সেই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে।তিনি আরও বলেন,এই মুহূর্তে শহরে জলসংকট নেই।সেরকম অবস্থা হলে খবর পাওয়ার সাথে সাথে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে ট্যাংকারের মাধ্যমে পানীয় জল পাঠানো হচ্ছে বলে তিনি জানান।বিজেপির পক্ষ থেকেও স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবীকে সমর্থন জানানো হয়েছে।বিজেপি নেতা ও কাউন্সিলর নীলাদ্রী দানা বলেন,বিষয়টি পৌরসভাকে বারবার জানিয়েও কোন কাজ হয়নি।যা জল সরবরাহ করা হচ্ছে তা পর্যাপ্ত নয় দাবী করে তিনি বলেন,জল নেওয়াকে কেন্দ্র করে পাড়া প্রতিবেশীর মধ্যে ঝামেলা তৈরি হচ্ছে।ভোটের আগে এরকম ঘটনায় বাঁকুড়া বাসি খুবই উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে।

FOLLOW US ON:
Rate This Article:
NO COMMENTS

LEAVE A COMMENT