উপেক্ষিত ময়দানের ভিকি দা? খেলোয়াড় জীবনের শেষ এ এটাই কি প্রাপ্য ছিল?

খেলা শিরোনাম

১০দিক২৪, সায়ক করঃ  খেলা তখন শেষ, একা একা মাঠ প্রদক্ষিণ করছেন মেহেতাব হোসেন,আজ যে তার শেষ দিন এই মাঠে! খেলোয়াড় হিসাবে, কত হিসাব নিকেশ হয়েছে এই মাঠে, চোখ এ চোখ রেখে লড়াই হয়েছে,.. ১৪,২৩ কত জার্সির ই ঝলক দেখেছে এই যুবভারতী, কখন ও পড়ে গেছেন আবার উঠে দাড়িয়েছেন আবার লড়েছেন আবার পড়েছেন আবার উঠেছেন।মেহেতাব মানেই লড়াকু যোদ্ধা।

কিন্তু আজ কি তার এটাই প্রাপ্য ছিল??খেলা শেষ এ একজন মোহনবাগান খেলোয়াড় ও মাঠে ছিল নাহ। প্রফেশনাল সোনি,ডিকারা ড্রেসিংরুমে ফিরেছে অনেক ক্ষণ, শরীর টেনে তারা আর ফিরল ই নাহ, কর্তা রা নাম কা ওয়াস্তা এল বটে তবে এটাই কি প্রাপ্য ছিল ময়দানের ভিকি দার?




চক্ষু সম্মান বাচালো অবশ্য অ্যারোজ এর ছোটোরা, বুট তুলে রাখার দিনে হাওয়ায় ছুড়ে দিয়ে যোগ্য সম্মান দিল ইস্টবেঙ্গল এর ঘরের ছেলেকে।তবে চমক এখানেই শেষ নাহ আজ রাগ ভুলে পরবর্তী জীবনের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছে ইস্টবেঙ্গল সাপোর্টারসরা তবে তাদের মুখে একটা ই কথা “আজ আমাদের ক্লাব এ থাকলে,আমাদের ঘরের ছেলে যোগ্য সম্মান টা পেত”।

সব কিছুর ই শেষ থাকে, নস্টালজিক ফুটবলের এরা টার ও শেষ হল, মেহেতাব,অসীম এরাই যে বাঙালীর ফুটবল এর হৃদয় তা বলাই বাহুল্য,গাড়িতে ওঠার সময় চোখ টা ছলছল করে উঠল, জিজ্ঞাসা করাতেই হেসে দিল ” কোথায় কিছু নাহ তোঃ”,,লড়াকু মেহেতাব এখানেই শেষ বাজিতে কড়া ট্যাকেল টা করেই দিলেন,স্মৃতি গুলো আজ তোলা থাক, ট্যাকেল, সেটপিস,গেমপ্ল্যান,আর মেহেতাব হোসেনচিত লড়াই আজ স্মৃতির পর্দায় কড়া নাড়বে,, আজ এসব থাক।।

এগিয়ে চলুক আমাদের প্রিয় ভিকি দা, ১০ দিক ২৪ এর তরফ থেকে ভিকি দার জন্য ফুটবল পরবর্তী জীবন এর জন্য শুভেচ্ছা রইল।