সামনে এল সমীক্ষা। দেশ জুড়ে কমতে চলেছে বিজেপির আসন।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ এবার কি ব্যাপক ভাবে কমছে বিজেপির জনপ্রিয়তা সমীক্ষা তাই বলছে। প্রথম দফার ভোটের পরে বদলে গিয়েছে পরিস্থিতি।আগে যে পরিমাণ আসন প্রত্যাশা করা হয়েছিল, তার চেয়ে অনেক কম আসন পাবে বিজেপি।এমনটাই দাবি করছেন ভারতের প্রথম সারির দুই সমীক্ষক সংস্থা সি-ভোটার এবং সিএসডিএসের প্রথম।সূত্রে খবর,সর্বভারতীয় সংবাদ সংস্থা ‘The Quint’ কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন,সিএসডিএসের ডিরেক্টর সঞ্জয় কুমার।গত এক মাসে ১৯ শতাংশ কমেছে প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা।

প্রথম পর্বের ভোটের পরই তাঁরা অবস্থান বদলেছেন। আরো খবর, এক সাক্ষাৎকারে সিএসডিএস ডিরেক্টর সঞ্জয় কুমার জানিয়েছেন,“উত্তরপ্রদেশের ৮ লোকসভা আসনের মধ্যে ৬টি মুসলিম অধ্যূষিত আসনে গতবারের তুলনায় ভোট কম পড়েছে।যা স্পষ্ট ইঙ্গিত দিচ্ছে এবারের ভোটে কোনও মোদি হাওয়া কাজ করছে না।আর এখানেই বিপদ আছে বিজেপির।গতবছর এই আটটিতেই জিতেছিল গেরুয়া শিবির।কিন্তু এবার অন্তত ৬টি তাদের হারাতে হবে বলে মনে হচ্ছে।”তাহলে কি মোদি ম্যাজিক আর কাজ করছে না।

আগের সমীক্ষায় সিএসডিএস অনুমান করেছিল উত্তরপ্রদেশে ৩২ থেকে ৪০টি আসন পেতে পারে।কিন্তু প্রথম রাউন্ডের পরে তাঁরা তাদের অনুমান কমিয়ে করেছে ২০ থেকে ২৫টি আসন। শুধু উত্তরপ্রদেশ নয়, যদি ভোটের হার না বাড়ে তাহলে বিহার এবং মহারাষ্ট্রেও প্রত্যাশার তুলনায় অনেক কম আসন পেতে পারে বিজেপি।মহারাষ্ট্রে আসন সংখ্যার অনুমান ছিল ৩৮-৪২।কিন্তু সঞ্জয় কুমার বলছেন, পুলওয়ামার পরে যে মোদি হাওয়া তৈরি হয়েছিল, তা স্তিমিত। এখন ভোট হচ্ছে স্থানীয় ইস্যুতে।আর তা বিজেপির জন্য খারাপ খবর। সি-ভোটারও বিজেপির আসন সংখ্যা প্রত্যাশার তুলনায় অনেকটাই কম হবে বলে মনে করছে।সি-ভোটারের সমীক্ষা অনুযায়ী আগে যা মোদি হওয়া ছিলো তা এখন কমেছে। যা ভাল খবর নয় গেরুয়া শিবিরের জন্য।প্রথম পর্বের ভোটের পরই তাঁরা অবস্থান বদলেছেন।হু হু করে কমছে বিজেপির জনপ্রিয়তা, দাবি দুই সংস্থার।মোদি যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তা পূরণ করতে পারেননি বলেই মোদি হওয়া আর নেই এমনই দাবি বিরোধী দলের।তাহলে কি সব জায়গাতেই কমতে চলেছে বিজেপির আসন?