জম্মু ও কাশ্মীরে সমর্থন প্রত্যাহার করে,রাজ্য ভার রাজ্যপালের হাতে তুলে দেওয়া দাবিবিজেপির।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ জম্মু কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির অনুরোধে রমজান মাসে কেন্দ্রীয় সরকারকে জঙ্গি বিরোধী কার্যকলাপ বন্ধ রাখার প্রস্তাব দেয়। আর সেই প্রস্তাব কে আন্তরিকতার সঙ্গে গ্রহণ করেছিল কেন্দ্র। তবু সন্ত্রাস থামেনি কাশ্মীর উপত্যকা তে, উল্টে এই এক মাসে বহু গুনে বৃদ্ধি পায়। ১৬ মে থেকে ১১ জুনের মধ্যে ৬৬টি ছোট বড় জঙ্গি হামলা হয়েছে কাশ্মীরে। আর তাই রমজান মাস শেষ হতেই অস্ত্রবিরতি প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্রীয় সরকার৷

আর আজ মেহবুবা মুফতির জোট সরকার থেকে সমর্থন তুলে নিল বিজেপি। এখন জম্মু কাশ্মীরে মেহবুবা সরকার পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। সেখানে জারি হতে পারে রাষ্ট্রপতি শাসন। কারণ মেহবুবা সরকার একক ভাবে ক্ষমতায় আসতে পারেনি। জয়ী হতে পাশে ছিল বিজেপি। জম্মু ও কাশ্মীর বিধানসভায় মোট আসন ৮৭ টি। যার মধ্যে পিডিপি ২৮ টি, ও বিজেপির বিধায়ক ২৫ টি। কংগ্রেসের সদস্য সংখা ১২ টি । বিধানসভা ভোটের পরবর্তী সময় পিডিপি ২৮ টি, ও বিজেপির বিধায়ক ২৫ টি নিয়ে মোট ৫৩ জন সদস্য কে নিয়ে জোট সরকার হয়েছিল দু দলের। আর সেই বিজেপি এখন পাশ থেকে সরে গিয়ে জানিয়েছেন রাজ্য ভার রাজ্যপালের হাতে তুলে দেওয়াই শ্রেয়।

 

 


বিজেপির এই সরে যাওয়ার জন্য মেহবুবা সরকার এর বিরুদ্ধে কয়েক টি অভিযোগ করেছেন। বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব এদিন সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে জানান, "জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ, এটা মাথায় রেখে ও রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমাদের অভিমত, ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ রাজ্যপালের হাতে তুলে দেওয়াই শ্রেয়।"
রমজানে জঙ্গি দমন অভিযান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, কাঠুয়া গণধর্ষণ মামলার বিচার সহ কয়েক টি ইস্যুতে দুই দলের
মতানৈক্য ইতিমধ্যেই সামনে এসেছিল। এই সন্ত্রাসের মধ্যে জম্মু ও কাশ্মীরের ইতিহাসের পাতায় কি লেখা হবে, সেদিকেই তাকিয়ে দেশবাসী।