ক্রমশ বাংলা ভুলছে সৌজন্যের রাজনীতি, কমছে সহনশীলতা।

২দিন আগে হাবরায় বিজেপির পক্ষ থেকে একটি থানা ঘেরাও কর্মসূচি হয়।সেখানে উপস্থিত ছিলো বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।সেখান থেকে তৃণমূল কে আক্রমণ করতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন তৃণমূল যদি হিংসার রাজনীতি করে তবে তাঁরাও ছেড়ে কথা বলবে না।বিজেপি নেতা এও বলে ত্রিপুরা তে আমরা জিতেছি এবার বাংলায় জিতবো তারপর তৃণমূল কলকাতার বাইরে বেরোলো মানুষ ওদের জামা কাপড় খুলে নেবে।

এর পাল্টা দিতে খুব বেশি সময় নেন নি তৃণমূল নেতা এবং রাজ্যের বিধায়ক জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক তিনি বলেন বিজেপি অশিক্ষিত বর্বরের দল।তিনি আরো বলেন দিলীপ ঘোষ একবার হাবরায় এসে দেখুন মানুষ গণধোলাই দিয়ে ওকে হাবরা থেকে বের করবে।বিধায়ক বলে উনি এখনো গণধোলাই খায় নি তবে এবার দিলীপ ঘোষ গণধোলাই খাবে।জেলায় জেলায় ঘুরে বাজে বকা ছাড়া উনি আর কিছু করেন না দিলীপ ঘোষের সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন জ্যোতিপ্রিয়।

কয়েক বছর আগেও বাংলায় রাজনৈতিক সংস্কৃতি এরকম ছিলো না।বাংলার রাজনীতিতে ছিলো মূলত আদর্শ গত লড়াই তার বহু নিদর্শন ও আছে।কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় আমরা কয়েক বছর আগে এই বাংলায় দেখেছি বিরোধীদের বিধানসভা ভাঙচুর করতে।তবে কি রাজনৈতিক সৌজন্য অথবা সহনশীলতা কিছুই কি আগামীদিনে বাংলার রাজনীতিতে অবশিষ্ট থাকবে না?