দিলীপের ওপর ক্ষোভ? তাই কি সভায় এলেন না বাবুল। বাড়ল জল্পনা।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ  বিজেপির সভা চলাকালীন শামিয়ানা ভেঙে পড়ে আহত হন কমপক্ষে ২২জন। মেদিনীপুরে নরেন্দ্র মোদীর সভায় দুর্ঘটনাটি ঘটে। জানা যাচ্ছে লাগাতার বৃষ্টির ফলেই শামিয়ানার একটি অংশ দুর্বল হয়ে পড়ে, এই ঘটনাটি ঘটেছে বলে অনুমান। কৃষকদের উন্নতির জন্য ডাকা এই সভায় তখন ব্যক্তিতা করছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তখনই শামিয়ানাটি ভেঙে পড়ে। কমবেশি ২২জন আহত হন।

দুর্ঘটনার দায় কার? তাই নিয়েই বঙ্গ বিজেপি দু ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। দোষ কার টা নিয়ে বাবুল সুপ্রিয় এবং দীলিপ ঘোষের মধ্যে তুমুল কথা কাটি হয়। বাবুল বাবু জানান যেখানে নরেন্দ্র মোদী আসছে, এত লোক আসবে জেনেও কেন নিরাপত্তার কথা বেশি করে ভাবলো না নেতৃত্বরা। দীলিপ বাবু ও চুপ না থেকে বাবুল সুপ্রিয়কে, আপনারও আগে এখানে এসে দেখভাল করা উচিত ছিল, বলে অভিযোগ জানান।

এই অশান্তি মেটাতে মাঠে নামেন কেন্দ্রীয় নেতারা। কৈলাস বিজয়বর্গীয় বিষয়টি নিয়ে বাবুল এবং দিলীপ দু’জনের সঙ্গেই কথা বলেন। তবে বাবুলের রাগ যে এখন ও কমেনি বোঝা গেল আজকের বৈঠকে অনুপস্থিতি নিয়ে। গত কাল থেকে আসানসোলে একটি বেসরকারি হোটেলে শুরু হয়েছে বিজেপির সাংগঠনিক সভা, যেখানে উপস্থিত আছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয় থেকে হেভি ওয়েট নেতারা। কিন্তু আশ্চর্য ভাবে সভায় এলেন না আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। এই নিয়েই শুরু হয়েছে চর্চা, তবে কি চন্দনের পর বাবুল ও ক্ষোভের কারণে ছাড়তে পারেন বিজেপি? তবে এবিষয়ে কারণ স্পষ্ট করেছেন দিলীপ বাবু। তিনি জানান, সংসদে অভিযান চলছে তাই কোন সাংসদ উপস্থিত হতে পারেন নি। তবে অনেক রাজনীতিবিদ ই বাবুলের অনুপস্থিতিতে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন।