লোকসভার আগে মমতাকে দুর্বল করতেই কি সরানো হচ্ছে ১০জন আইএএস ? উঠল জল্পনা।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ রাজ্য সরকারের সাথে সরকারী আমলাদের ঘনিষ্ঠতার ব্যাপারে বারেবারে সরব হয়েছেন বিরোধীরা। বঙ্গ বিজেপির বর্তমান নেতা মুকুল রায় এ ব্যাপারে অনেকদিন আগেই মুখ খুলেছিলেন। রাজ্যের বিরুদ্ধে তোপ দেগে জানিয়েছিলেন এই সব ঘনিষ্ঠ আমলারা লোকসভা ভোটে থাকবেননা। এই জল্পনা কে উসকে দিয়েই রাজ্যের প্রধান সচীব পদে বহাল থাকা ১০জন আইএএস কে দিল্লীর প্যানেল এ নেওয়া হল।

এই দশজনের মধ্যে অন্যতমরা হলেন স্বরাস্ট্র সচিব অত্রি ভট্টাচার্য, পুর ও নগরোন্নয়ন সচিব সুব্রত গুপ্ত, উচ্চশিক্ষা সচিব আর এস শুক্লা, তথ্য সংস্কৃতি সচিব বিবেক কুমার, সেচ দপ্তরের সচিব নবীন কুমার সহ সুমন্ত চৌধুরী, বিবেক ভরদ্বাজ, এস কিশোর, তাল্লিন কুমার ও চন্দন সিনহা। এরা প্রত্যেকেই রাজ্য সরকারের ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। হঠিৎ করেই এদের চেয়ে পাঠানো যে লোকসভা ভোটের আগে মমতা কে চাপে রাখারই একটি কৌশল তা নিয়ে নিশ্চিত রাজনৈতিক বা প্রশাষনিক মহল।

তবে রাজ্য না ছাড়লে উক্ত আইএএস দের দিল্লী নিয়ে যেতে পারবেনা। আর এখানেই মোক্ষম চালে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন যে তারা এতজন আইএএস কে একসঙ্গে ছাড়বেননা। পূর্বেই রাজ্যে প্রয়োজনের তুলনায় আইএএস অফিসার কম আছে। তাই তাদের হুট করে ছেড়ে দেবার কোনো মানেই হয়না।

প্রসঙ্গত দুবছর আগে দিল্লীর অতিরিক্ত সচিব পদে ইন্দিবর পান্ডে এবং এস এ বাবা কে নথিভুক্ত করা হয়ে গেলেও তাদের এখনও ছাড়েননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

আরও পড়ুনঃ 'বাংলা' জয় বামেদের। বামেদের দেখানো পথেই হাঁটল বাংলার ভবিষ্যৎ।