‘কন্যাশ্রী’ র টাকায় চলছে তৃণমূলের উৎসব। বামেদের চাপে, বেড়িয়ে এল আসল তথ্য।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ  ভ্রূণ হত্যা ১কিছুদিন আগেই  ‘কন্যাশ্রী’ দিবসে মমতা জানান, কন্যাশ্রীর ফলে এখন বাংলায় কন্যা১.৫০ শতাংশ কমে গেছে। তিনি জানান ভারতের পার্লামেন্টে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি দের মধ্যে ৩৫.২৯ শতাংশ মহিলা, যা সারা দেশের মধ্যে সব থেকে বেশি। কন্যাশ্রী দিবসে কন্যাশ্রীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় উপহার দেবার প্রতিশ্রুতি ও দেন তিনি। এমন কি সকল ছাত্রী দের জন্য এবার থেকে কন্যাশ্রী দেওয়া হবে বলে ও কথা দেন তিনি। কিন্তু ছাত্রীরা এই টাকা কতটা পাচ্ছে? এবার কেঁচো খুঁড়তে বেড়িয়ে এল কেউটে।

জানা যাচ্ছে, কন্যাশ্রী দিবস পালনের লক্ষ্যে কোলকাতা পুরসভার পক্ষ থেকে প্রত্যেক কাউন্সিলারের জন্য ৩৫ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। কিন্তু এই টাকা কাউন্সিলারদের কাছে না গিয়ে, খরচা হয়েছে তৃণমূলের দলীয় অনুষ্ঠানে। এই নিয়ে অভিযোগ তুলেছে বাম কাউন্সিলাররা। প্রসঙ্গত, কিছু দিন আগেই "মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণা" না লেখায়, সরকারী অনুষ্ঠান থেকে বাদ য়ান বাম কাউন্সিলররা। প্রথমে উদ্যোগ কে স্বাগত জানালেও যখন তাঁরা জানতে পারেন যে অনুষ্ঠানে লিখতে হবে 'মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায়', তখনই বেঁকে বসেন তাঁরা। এর পরেই ছেঁটে ফেলা হয় বামেদের নাম।

৯৮ নম্বর ওয়ার্ডে সিপিএম কাউন্সিলার মৃত্যুঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, "সরকারি টাকা কীভাবে দলের নেতাদের পকেটে যাচ্ছে, তার জবাব মেয়রকে দিতেই হবে।" এই মুহূর্তে তিনটি বরোর ৯১,৯২,৯৮,১০২, ১০৩ এবং ১১১ নম্বর ওয়ার্ডে রয়েছেন বামেদের কাউন্সিলাররা। যাদবপুর,গড়িয়া,সন্তোষপুর বা ঢাকুরিয়ার মতো এলাকায় রয়েছে বামেদের দখলে। এই নিয়ে মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় দের বিরুদ্ধে এবার বড় আন্দোলনের পথে। তবে এভাবে ছাত্রী দের টাকায় তৃণমূলের উৎসবের নিন্দা করেছে সব মহল।