Homeপ্রচ্ছেদবৈষম্য আর নয়! ভোটের আগে রাজপথে বার্তা কলকাতার নারীদের।

বৈষম্য আর নয়! ভোটের আগে রাজপথে বার্তা কলকাতার নারীদের।

১০দিক২৪ ব্যুরোঃ কেন্দ্রে কেমন সরকার চান এবং সরকারের প্রতি তারা কি কি প্রত্যাশা চান এমনটাই জানিয়েছেন কলকাতাবাসী একাংশ মহিলা।তাঁদের সঙ্গে পা মেলালেন একঝাঁক সমাজকর্মী, শ্রমজীবী নারী, সংস্কৃতিকর্মী। তাঁদের কেউ রূপান্তরকামী-সমকামীদের অধিকার আন্দোলনে সক্রিয়, কেউ দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করছেন মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে, কারও কাজের পরিসর যৌনকর্মী বা পরিচারিকাদের অধিকার আন্দোলন। এ যেন শহরে দেখা গেছে এক নতুন মিছিল। একে অপরের সাথে পা মিলিয়ে তারা তাদের প্রত্যাশার কথা জানিয়েছেন শুক্রবারে।

তাঁদের মধ্যে ছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালক অপর্না সেন, রাজ্যের শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন অনন্যা চক্রবর্ত্তী, মানসিক স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলনের সংগঠক রত্নাবলী রায়েরা। স্লোগান, পোস্টার, ব্যানারে বার্তা দেন, আসন্ন নির্বাচনের মাধ্যমে ভারতের বহুমাত্রিকতা এবং নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষা করার কথা ।লিঙ্গ-পেশা-জাতি-যৌন পরিচয় নির্বিশেষে প্রত্যেক ভারতীয়কে সমান সুযোগ দিতে হবে রাষ্ট্রকে। তারা তাদের এই দাবিতে মৌলালী থেকে উত্তর কলকাতার শ্যাম পার্ক পর্যন্ত মিছিল চালিয়ে যান।

হঠাৎ এরকম মিছিলের ডাক দিলেন কেন তারা? প্রোগ্রেসিভ উইমেন্স অ্যাসোসিয়েশন বা আইপোয়ার নেত্রী মিতালী বিশ্বাস বলেন, “শুধু কলকাতা নয়, গোটা দেশজুড়ে আজ মহিলারা পথে নেমেছি। উইমেন্স মার্চের মাধ্যমে আমরা সবকটি রাজনৈতিক দল সহ গোটা দেশের সামনে আমাদের দাবিদাওয়াগুলি তুলে ধরতে চাই।” তাঁর কথায়, “গত কয়েক বছরে আমরা দেখেছি ভারতে বহুমাত্রিক সংস্কৃতি ও বহুত্ববাদের উপর ভয়াবহ আক্রমন নামিয়ে আনা হচ্ছে। সংখ্যালঘু এবং মেয়েরা সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই তারা এই রকম মিছিলে নেমেছে।তারা আরো বলেছেন কালবুর্গি, দাভলকর, পনসরে, গৌরী লঙ্কেশ সহ ভিন্নমতের মানুষদের উপর আক্রমন চলছে, হত্যা করা হচ্ছে তাঁদের। আমরা এই পরিস্থিতির অবসান চাই।” রত্নাবলী বলেন, “সব রকমের প্রান্তিক মানুষের যথার্থ প্রতিনিধিত্ব ছাড়া গণতন্ত্র বিকশিত হতে পারে না। নির্বাচনের প্রাকলগ্নে এই বিষয়টি চর্চিত হওয়া প্রয়োজন।”

মিছিলের কেন্দ্রীয় স্লোগান ছিল – “পথে নেমেছি মেয়ের দল, এই ভোটে চাই দিন বদল।” মৌলালিতে মিছিল শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন অর্পনা। তিনি বলেন, “সব ধরনের ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে আমরা, মেয়েরা সরব হব। এমন সরকার তৈরি হোক, যারা চাকরি সহ জীবনযাপনের কোনও পরিসরে কোনোরকম বৈষম্যকে স্থান দেবে না। যৌনকর্মী, রূপান্তরকামী, সংখ্যালঘু, একক নারী – প্রত্যেকের সম্পূর্ণ স্বাধীনতা এবং সমান সুযোগ চাই।”

FOLLOW US ON:
সব বুথে
Rate This Article:
NO COMMENTS

Sorry, the comment form is closed at this time.